Company Share in Bangladesh- Everything you need to know in 2023

Company Share in Bangladesh- Everything you need to know in 2023

TR Law Firm in Bangladesh

Company Share in Bangladesh

Barrister Tahmidur Rahman Lawfirm

24 Jan 2022

This article will explain in details about company shares in Bangladesh, Share capital, Share issued in discount and everything you need to know about shares of a comapny in Bangladesh.

Shares of Company in Bangladesh

Before we talk about shares of a company in Bangladesh. There are five ways of doing business in Bangladesh:

 

A company share in Bangladesh is a movable property transferable as per provisions of the articles. There is no exhaustive definition of a share in the Act.’ A share is the interest of a shareholder in the company measured by a sum of money, for the purpose of liability in the first place, and of interest in the second, but also consisting of a series of mutual covenants entered into by all the shareholders inter se in accordance with section.

 

A company share in Bangladesh is a type of contractual claim against a company. It is an example of intangible property called a ‘chose in action’ or “Thing in action’. Professor R Pennington discusses the difficulty of defining shares and concludes that they are a species of intangible movable property which comprises a collection of rights and obligations relating to an interest in a company of an economic and proprietary character, but not constituting a debt.

    Legal and Equitable Actions in company share in Bangladesh

    In English law there are two kinds of chose in action; (i) legal choses in action (being claims enforceable at common law) and (ii) equitable choses in action (Being claims enforceable in equity). Because a company share in Bangladesh is a creature of statute, it is a legal rather than an equitable chose in action.  In that respect it differs from a share in a partnership, which is an equitable chose in action because, historically, the interest of a partner has been enforceable in equity and not at law.

     

    A share in a company also differs from a share in a partnership in terms of transferability of membership. In companies listed on the Stock Exchange a share can be freely sold and transferred. In unlisted companies there can be restrictions on transfer. The transferee becomes a member of the company in substitution of the transferor. A person who buys the share of a partner, however, acquires an interest but does not become a partner; the vendor becomes a trustee for him of the interest agreed to be sold.

     

    A transfer of a share as a legal chose in action differs from transfer of a debt as a legal chose in action. A creditor can transfer the legal ownership of a debt by a two sided written assignment between a transferor and transferee with written notice to the debtor, but without needing his consent. Of course, the debtor cannot transfer the liability without the consent of the creditor. 

    But to transfer the legal ownership of a company share in Bangladesh, a change in the company’s share register is needed. That means there is a three-sided novation (the substitution of a new contract in place of an old one) rather than a two-sided assignment. Hence, liability attached to a partly paid-up share can be transferred although the transferor can remain liable if the company commences to wind up within one year from the transfer.

     

    The rights making up a share are not separate pieces of property. If a company share in Bangladesh had carried only financial rights it might have been considered divisible; but a share carries rights of membership and the whole scheme of the company law does not admit of membership referable to a fraction of a share. Hence, a company cannot allot fractional shares.

     

    Nor can a shareholder divide an allotted share so as to assign only some of the set of rights, such as the right to be paid dividends. If a member wishes to dispose of only part of the benefits of a share, that can be done behind the screen of a trust.

     

    The member could create a trust of the share so that the trustee would be bound to account to one beneficiary for, say, dividends only and to account to another beneficiary for other benefits. A share as an item of property differs from physical subjects of ownership such as land in that its characteristics are fixed, not by nature, but by whatever is put into the contract between company and shareholder.

     

    In a company, the rights attached to company share in Bangladesh may be so framed that the shareholder is restricted (for example, as to transfer of the shares) and those restrictions will apply to anybody who becomes owner of the shares. In other words, in a share the restrictions can go to defining the property itself instead of being something external that is imposed in respect of a pre-existing item of property.

    Company Share In Bangladesh_ Top Law Firm In Bangladesh_Barrister Tahmidur Rahman Remura 2022

    If you want to know about Share Transfer Process in Bangladesh

    • Step by Step Process of transferring shar in Bangladesh

    Share Capital or Authorised Capital in Bangladesh

    The word “capital” used in connection with a company has several different meanings. It may mean the nominal or authorised share capital, the issued share capital, or the paid-up share capital of the company.

     

    The nominal or authorised capital is merely the amount of share capital which the company is authorised to issue. In the case of a limited company the amount of potential share capital with which it proposes to be registered, and the division thereof into shares of a fixed amount, must be set out in the memorandum of association. This as well as the paid-up amount may be increased or reduced.

     

    The amount of the company’s nominal capital depends on its business requirements, actual or potential. At the time of registration of the company the promoters will have to pay fees and stamp based on the amount of the nominal capital.

     

    The issued or allotted capital is that part of the company’s nominal capital which has been issued to the shareholders. The company is not bound to issue all its capital at once.

    Further issues of capital are made as they are needed (please find the details in section 155 of the Act).

    The paid-up capital is that part of the issued capital which has been paid-up by the shareholders. The company may, for example, have a nominal capital of Tk 500,000 divided into 500,000 shares of Tk One each, of which Tk 400,000 is issued, i.e., 400,000 of the shares have been issued and only Tk 100,000 is paid-up, i.e., the company has so far required only 25p. to be paid-up on each share. The uncalled capital is the remainder of the issued capital and can be called up at any time by the company from the shareholders in accordance with the provisions of the articles.  

    The paid-up capital of the company includes the value of the shares paid-up and any premium on such shares although the share premium will be shown as share premium account in the balance sheet.

    The Securities and Exchange Commission has to be satisfied before company share in Bangladesh can be issued at a premium as to the justification for it.

    Company Share In Bangladesh_ Best Corporate Law Firm In Bangladesh_Barrister Tahmidur Rahman Remura 2022

    Shared Issued at discount in Bangladesh

    The issued share capital of a company is the fund to which creditors of the company can look for payment of their debts, and so, to protect the creditors, shares can be treated as paid-up only to the extent of the amount actually received by the company. Section 152 and 153 of the Company Act impose restrictions on issue of shares and debentures at a commission or discount.

    A commission may be paid only if its payment and rate are approved by the articles and is mentioned in the prospectus where such a prospectus is issued and, in a statement, in lieu of prospectus where such a prospectus is not issued. 

    Shares may be issued at a discount if such issue is authorised by resolution of the company in general meeting and sanctioned by the Court.

    The resolution must specify the maximum rate of discount not exceeding ten percent at which shares are to be issued and not less than one year has elapsed since the date on which the company was entitled to commence business and the shares to be issued at discount are done so within six months after the date on which the company was entitled to commence business.

    Every prospectus and balance sheet issued after the company share  discount must contain particulars of the discount allowed on the issue of shares.

    Redeemable Preference Shares in Bangladeshi Companies (company share in Bangladesh)

    Redeemable Preference Shares can be issued if so authorised by the articles. Section 154 of the Companies Act however provides that no such share shall be redeemed except out of profits of the company which would be otherwise available for dividend or out of the proceeds of a fresh issue of shares made for the purposes of the redemption or out of sale proceeds of any of the profits of the company.

    No such share shall be redeemed unless they are fully paid-up and where any such shares are redeemed otherwise, than out of the proceeds of a fresh issue, there shall out of profits which would otherwise have been available for dividend, be transferred to a reserve fund to be called the capital reserve fund.

    A sum equal to the amount applied in redeeming the shares, and the provisions of the Act relating to the reduction of the share capital of a company shall apply as if the capital redemption reserve fund were paid-up share capital of the company.  

    Where any such shares are redeemed out of the fresh issue, the premium, if any, payable on redemption must have been provided for out of the profits of the company before the shares are redeemed.

    There shall be included in every balance sheet of a company which has issued redeemable preference shares a statement specifying what part of the issued capital of the company consists of such shares and the date when the shares are liable to be redeemed and where no such date is fixed the period of notice that is to be given for redemption.

    Company Share In Bangladesh_ Best Commercial Law Firm In Bangladesh_Barrister Tahmidur Rahman Remura 2022

    If you want to open a liaison office in Bangladesh or about branch formation click here!

    Essential Information for Foreign Investors

    Foreign investors need to keep the following things in mind when they plan to form a private limited company in Bangladesh:

    • The costs of registering a company are primarily determined by the company’s authorized capital. The average cost is between USD 1800.
    • Shelf companies are not permitted and must have a physical place of business in Bangladesh.
    • Bangladesh Forex Regulations allow for the full repatriation of profits and investments.
    • Foreign nationals may be employed at a 20:1 (local: expat) ratio, subject to obtaining the necessary work permit.
    • Except in a few restricted areas, 100 percent FDI investment is permitted.
    • Directors can be either foreign or domestic nationals.
    • The typical corporate income tax rate ranges from 25% to 45 percent, depending on the sector and nature of the company.

      However, tax exemptions are available for selected sectors and areas for 5-7 years.

    • There are also additional tax exemptions  for investing in Special Economic Zones.

     

    Corporate Associates

    Dedication

    Commercial Clients

    Partners

    Team up with the best law firm in Bangladesh to help you through the process.

    “Tahmidur Rahman – The Law Firm in Bangladesh is considered as one of the leading corporate firms in Dhaka, Bangladesh”

    BDLaw Firms Bangladesh

    What are some alternative ways to set up a company in Bangladesh?

    Branch Office:

    A branch  is not a separate incorporated entity, but rather an extension of its parent company. In other words, the parent company is liable for the liabilities of its branches. 

    With Bangladesh Investment Development Authority’s (BIDA) approval, a branch can engage in commercial activities. The Exchange Control Guidelines, on the other hand, strictly monitor its operation.
    In Bangladesh, the average time to open a branch officis 45- 60 days.

    Liason Office:

    A liaison, also known as a representative office, is subject to BIDA approval  similarly as a branch.

    It must have an overseas parent company, and its activities are limited because it only serves as a communication or coordination instrument for Bangladesh’s business resources.

    Also, keep in mind that a liaison office in Bangladesh cannot earn any local income. Through remittance, the parent company bears all of its expenses and operational cost. It also adheres to the general business registration procedure in Bangladesh.

     

    How To Register A Private Limited Company In Bangladesh Infographics Remura Mahbub

    “To start a private limited company in Bangladesh, you will need to open a temporary bank account in the proposed company name with any scheduled bank in Bangladesh.

     This stage is solely applicable if the proposed company has foreign shareholding.”

    – Barrister Remura Mahbub

    Are you planning to register a private limited company in Bangladesh?

    Company formation and registration at Tahmidur Rahman TLS:

    The legal team of Tahmidur Rahman, The Law Firm in Bangladesh TLS are highly experienced in providing all kinds of services related to forming and registering a Private Limited Company, Branch office Registration, Share Transfer Process in Bangladesh . For queries or legal assistance, please reach us at:

    E-mail: [email protected]
    Phone: +8801847220062 or +8801779127165

    Address: House 410, Road 29, Mohakhali DOHS, Dhaka 1212

     

    FAQ

    What is the basic of issuing Shares of a company in Bangladesh?

    The procedure through which companies distribute additional shares to shareholders is known as an issue of shares. There are two types of shareholders: individuals and corporations. When issuing shares, the corporation complies with the regulations set forth under the Companies Act of 1994.

    What are the nature and classes of shares in Bangladesh?

    One of the components into which a company's capital is divided is a share. Therefore, if a firm has BDT 5 lakh in total capital and divides that capital into 5000 units of BDT 100 each, each unit of BDT 100 is equivalent to one share of the company.

    As a result, ownership of the company is based on shares. A shareholder is a person who owns such shares and is hence a member of the business.

    The fundamental information about shares and share capital, such as the kinds of shares that must be mandated, will now be found in the articles of association. According to the Companies Act of 1994, a corporation may only issue two different kinds of shares. They differ in nature and in their rights and responsibilities. 

    What is the preference share of a company?

    A share that has two exclusive preferential rights over the other form of shares, namely equity shares, is referred to as a preference share. These two preference share specific requirements are

    a preferred position in relation to a company's declared dividends. They may get such dividends at a predetermined rate based on the nominal value of the shares they own. Preference shareholders receive the dividend before equity stockholders as a result.
    preferential treatment when it comes to capital repayment in the event of a corporate liquidation. This indicates that preference shareholders receive their payouts before equity shareholders do.
    Preference shares are comparable to equity shares aside from these two rights. Preference share holders have the opportunity to vote on any issues that directly affect their rights or duties.

    Actually, there are numerous forms of preference shares. They may be exchangeable or not. They can either participate (share in additional income after a dividend is paid out) or not. Additionally, they could be non-cumulative or cumulative (demand arrears will accumulate).

    What is the Equity Share of a company in Bangladesh?

    A share that isn't a preference share is an equity share. Shares without any preferential rights are therefore considered equity shares. They are only given equity, or ownership, in the business.

    Dividends paid to equity stockholders are not set in stone. Depending on the company's financial performance, the Board of Directors makes the decision. Additionally, the stockholders forfeit the dividend for that year if it cannot be declared; the dividend does not accumulate in such cases.

    Additionally, equity shareholders have proportional voting rights based on the company's paid-up capital. In essence, it is a system of "one share, one vote." A business cannot publish non-voting

    What is the procedure of Issuing Shares in Bangladesh?

    1] Issue of Prospectus
    The prospectus is released first, then the shares. The prospectus functions as a kind of solicitation to the general public to subscribe for company shares. A prospectus includes all of the company's information, including its financial breakdown, profit and loss accounts from the prior year, and balance sheets.

    Additionally, it describes how the funds raised will be used. A corporation must publish a prospectus or a document in its place when soliciting deposits from the general public.

    2) Receiving Applications
    Prospective investors may now submit applications for shares after the prospectus is released. The prospectus specifies the schedule bank where the required application funds must be deposited along with the completed application. The duration of the application period is 120 days at most. If the required minimum subscription amount is not met in these 120 days, the share issuance will be canceled. Within 130 days of the prospectus's release, the application funds must be returned to the investors.

    3] Share Allocation
    The shares may be distributed after the required minimum subscription amount has been met. Shares are typically oversubscribed, hence the allocation is made on a pro rata basis. Those whose shares have been allocated get Letters of Allotment in the mail. As a result, a legal contract is formed between the applicant and the business, who is now a shareholder.

    Letters of regret are provided to the applicants in the event that their application was refused. Following the allotment, the firm is free to pay the share capital in full or in installments as it pleases.

    What is a minimum subscription of share in Bangladesh?

    When the shares are made available to the general public as part of the share issuance, this is the minimum amount that must be raised. The Board of Directors typically determines this minimum subscription, however it cannot be less than 90% of the issued capital. As a result, for the offer to be considered successful, at least 90% of the issued capital must be subscribed for. In this scenario, the application money that has already been received must be refunded within the established time frame.

    What are the shares Issued at Par - Share Capital Account?

    Share allocation is not assured by applying for shares. A few applications will be turned down. In this case, we do not credit the share capital account when the application money is received. We create a new account—a sharing application account—for convenience's sake.

    According to the Companies Act, the funds obtained from the application must be placed in the bank account at a Schedule Bank. This account has been set up specifically to handle the application fee. The following is the journal record for this transaction in the business's books:

    What are the Shares issued at premium?

    We refer to shares issued at a premium as when the corporation chooses to issue shares at a price greater than the nominal value or face value. It is a fairly typical practice, particularly when the business has a solid track record, strong financial results, and a solid reputation. Let's say a share has a face value of BDT. 100 and is issued by the corporation at BDT. 110. It is said that the share was issued at a 10% premium. The premium will be shown in a separate account called the Securities Premium Account rather than becoming a part of the Share Capital account. The corporation can now call up this premium amount whenever it wants, i.e. with any call. The premium is often collected using allocation or application money, and rarely with call money. The Securities Premium Account has been credited with the premium sum that we previously specified. On the liabilities side of the balance sheet, under the heading Reserves and Surplus, is where you'll find this account.

    Infographics
    How To Form A Private Limited Company In Bangladesh_Best Corporate Law Firm In Bangladesh
    Video Tutorial
    Author’s Bio
    About Meheruba Mahbub | One of the most innovative young lawyers in Bangladesh

    Meheruba Mahbub is a finance partner and one of the Bangladesh's market leading international lawyers. She is head of the firm's Mergers and Acquisitions practice, which advises corporates and financial institutions on outbound and inbound investments, projects and financings.

    Meheruba has a diverse finance practice , representing large banks, financial sponsors, and corporations. She specializes in acquisition and structured financings, loan portfolio purchase and financing, real estate financings, and inbound and outbound transactions. She has extensive expertise in the energy and infrastructure industries.
    Work highlights

    Meheruba has acted on many high-profile Finance and Commercial deals in Bangladesh and India. These include advising:

    ⦾ Standard Chartered Bank on the sale of a portfolio of loans in Bangladesh, the first in a series of similar deals in Bangladesh as part of the government’s directive to banks to focus on the robustness of their balance sheets.

    ⦾ the lending and underwriting banks on the refinancing of US$6.9bn worth of debt uninsured by the Summit Group

    ⦾ Brookfield Property Partners on the acquisition and financing of Unitech’s real estate portfolio

    ⦾ Enron on the US$3bn Dhabol power project (since renamed Ratnagiri Gas and Power), the first ever inward investment into the power sector

    ⦾ the sponsor and borrowers on the Sakhalin LNG project, the world’s largest integrated oil and gas project and the largest LNG financing in Russia

    Email: [email protected]

    Address: 2 Turner Street, Canning Town, E16 1FH, United Kingdom

    Gender: Female

    Job Title: Barrister and Senior Associate

    Have a Different Question?

    Email us anytime : [email protected]

    Or call — +8801847220062 or +8801779127165

    Pi Visa For Foreign Investor In Bangladesh

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh • In order to apply for a work permit, foreign investors and employees must hold a PI (private investor) or E2/E3 (employment) VISA. • BIDA issues a letter of recommendation for obtaining a PI and E2/E3 VISA. • VoAs may be...

    How To Form An Association In Bangladesh

    How to form an Association in Bangladesh

    How to form an Association in Bangladesh abd Section 28 of the 1994 Companies Act: Under section 28 of the Companies Act, a nonprofit organization may incorporate as a corporation. This Association will enjoy all the advantages of a limited liability company, but it...

    Traffic And Road Laws In Bangladesh

    Traffic and Road laws in Bangladesh

    Traffic and Road laws in Bangladesh The administration of traffic and enforcement of traffic laws in Bangladesh have always been a mess. Our nation's road construction has never been able to keep up with the rapid increase of vehicles. In recent years, however, the...

    F-1 Student Visa From Bangladesh

    F-1 Student Visa from Bangladesh

    F-1 Student Visa from Bangladesh: The most common visa for students wishing to study in the United States is the F-1 student visa. It is a temporary visa for foreign students who wish to study at an accredited school or college in the United States. The United States...

    K-2 Visa For Children Of Us Citizens

    K-2 Visa for Children of US Citizens

    K-2 Visa for Children of US Citizens A K-2 visa allows the children of a K-1 fiance visa holder to enter the United States until an immigrant visa becomes available. To be eligible for one of these nonimmigrant visas, the applicant must be under the age of 21 and the...

    Mediation in Bangladesh

    Mediation in Bangladesh: A Complete OverviewBarrister Remura MahbubDirector, Tahmidur Remura TLS, Law Firm in Bangladesh12 Nov 2022The purpose of this article is to explain the entire process of mediation in Bangladesh: provisions that regulate mediation, step...

    Joint Ventures in Bangladesh

    Joint Ventures in Bangladesh: Types, Formation, and AgreementsBarrister Remura MahbubDirector, Tahmidur Remura TLS, Law Firm in Bangladesh10 Nov 2022The purpose of this article is to provide an in-depth overview of joint ventures (JV) in Bangldesh: types of...

    VAT registration and enlistment in Bangladesh

    VAT registration and enlistment in Bangladesh Every company in the country must have a unique Business Identification Number (BIN). A business must first obtain a VAT registration certificate before applying for a BIN. The annual turnover of a business determines...

    VAT agent in Bangladesh

    When and why is a VAT agent required in Bangladesh? A non-resident entity that conducts business in Bangladesh but does not have a fixed place of business must appoint a VAT Agent in Bangladesh, according to the Value Added Tax and Supplementary Duty Act, 2012, and...

    Warisan and Succession Certificate in Bangladesh

    Warisan and Succession Certificate in Bangladesh Warisan and Succession Certificate in Bangladesh is a vital document used to identify the heirs or successors of a deceased person. The Warisan Certificate is issued by the Ward Councilor's Office in the City...

    How to get a Portugal Passport from Bangladesh

    Portugal Passport By Investment The three most common routes to Portuguese citizenship for expats are outlined below. 1. Portuguese Passport By means of Marriage: After three years of marriage to a Portuguese citizen, one can acquire Portuguese citizenship through...

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh • In order to apply for a work permit, foreign investors and employees must hold a PI (private investor) or E2/E3 (employment) VISA. • BIDA issues a letter of recommendation for obtaining a PI and E2/E3 VISA. • VoAs may be...

    A complete guide on Franchise Business Registration in Bangladesh

    Bangladesh is the seventh largest consumer of goods and services in the world. In Bangladesh, franchising is an established method for launching a business. The industries of transportation, beauty, fast food, education, wellness, mail delivery, clothing, and health...

    How to form an Association in Bangladesh

    How to form an Association in Bangladesh abd Section 28 of the 1994 Companies Act: Under section 28 of the Companies Act, a nonprofit organization may incorporate as a corporation. This Association will enjoy all the advantages of a limited liability company, but it...

    F-1 Student Visa from Bangladesh

    F-1 Student Visa from Bangladesh: The most common visa for students wishing to study in the United States is the F-1 student visa. It is a temporary visa for foreign students who wish to study at an accredited school or college in the United States. The United States...
    বাংলাদেশে জমি রেজিস্ট্রেশন আইন এবং কিভাবে জমি রেজিস্ট্রেশন করবেন 2022 এ | Effective way of Registering Land

    বাংলাদেশে জমি রেজিস্ট্রেশন আইন এবং কিভাবে জমি রেজিস্ট্রেশন করবেন 2022 এ | Effective way of Registering Land

    বাংলাদেশে জমি রেজিস্ট্রেশন আইন এবং কিভাবে জমি রেজিস্ট্রেশন করবেন ২০২২ এ

    Best Advocate Lawyer Barrister In Bangladesh

    তাহমিদুর রহমান, Director and Senior Associate

    বাংলাদেশে অনেক মানুষই ভূমি আইন সম্পর্কে খুব বেশি জানেন না। ফলে তারা জমি নিয়ে নানা ধরনের প্রতারণা ও হয়রানির শিকার হন। জমি রেজিস্ট্রেশন করা খুবই জরুরি। রেজিস্ট্রেশন আইন ২০০৪ (সংশোধিত) অনুযায়ী, প্রায় সকল দলিল রেজিস্ট্রি করা বাধ্যতামূলক।
    আইন অনুযায়ী দলিল রেজিস্ট্রি করা হলে মালিকানা নিয়ে বিরোধ এড়ানো যায়। এছাড়া জমি রেজিস্ট্রি করা থাকলে পরবর্তীতে বিক্রি, দান, উইল করতে সহজ হয়। স্থাবর সম্পত্তি বিক্রয় দলিল অবশ্যই লিখিত হতে হবে। এখানে আমরা আজকে জমি রেজিস্ট্রেশন নিয়ে বিশদ আলোচনা করব। 

    Table of Contents

    Find the subsections below, If you want to jump through specific sections instead of reading the whole article.

    চেক-ডিসঅনার-মামলা-_-Best-Company-Law-Firm-In-Bangladesh-2

    বাংলাদেশে জমি রেজিষ্ট্রেশন সংস্থার বিবরণ – ইন্সপেক্টর জেনারেল, রেজিস্ট্রার ও সাব-রেজিস্ট্রার

    জমি রেজিস্ট্রেশন এর কার্যকলাপ সুষ্ঠু ভাবে পর্যালোচনা করার জন্য বাংলাদেশে একজন ইন্সপেক্টর জেনারেল আছেন। গত কয়েক বৎসর ধরে জেলা জজ পর্যায়ের অফিসারদেরকে সরকার ইন্সপেক্টর জেনারেলরূপে নিয়োগ করে আসছে। ইন্সপেক্টর জেনারেলের নিচে রেজিস্ট্রার ও সাব-রেজিস্ট্রার নিয়াজিত আছেন।

    সরকার রেজিষ্ট্রেশন কর্মের সুবিধার জন্য সারা দেশকে জেলায় এবং উপজেলায় বিভক্ত করেন এবং এই বিভাগকে গেজেটে বিজ্ঞাপিত করেন। তাছাড়া সরকার একে পরিবর্তনের ক্ষমতাও রাখেন।

    এই সমস্ত এলাকায় সরকার রেজিস্ট্রার ও সাব- রেজিস্ট্রার নিয়োগ করেন। সরকার রেজিষ্ট্রেশন এর কাজ সুনিষ্পন্ন করবার জন্য ইন্সপেক্টর জেনারেল অব রেজিষ্ট্রেশন, রেজিন্ট্রার ও সাব-রেজিস্ট্রারের অফিস স্থাপন করেন।

    এছাড়া সরকার এখতিয়ার অনুযায়ী রেজিষ্ট্রেশন অফিসের ইন্সপেক্টর নিয়াগ করতে পারেন। রেজিস্ট্রার অনুপস্থিতে থাকলে কিংবা তার পদ শূন্য থাকলে জেলা জজ তার কাজ করতে পারেন। সাব-রেজিস্ট্রার অনুপস্থিত থাকলে বা তার পদ শূন্য থাকলে রেজিস্ট্রার কর্তৃক নিয়োজিত যেকোন ব্যক্তি সাব-রেজিস্ট্রারের কাজ করতে পারেন।

    সরকার প্রত্যেক রেজিষ্ট্রেশন অফিসে অগ্নিনিরোধক বাক্স সরবরাহ করেন এবং দলিল রেজিস্ট্রিকরণ সম্পর্কিত রেকর্ডসমূহের নিরাপদ সংরক্ষণের জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

    জমি রেজিস্ট্রেশন এর ক্ষেত্রে কোন দলিল অবশ্যই রেজিস্ট্রি করতে হবে

    এবার দেখা যাক, কোন কোন দলিল অবশ্যই রেজিস্ট্রি করতে হবে। এই প্রসঙ্গে কয়েকটি প্রাথমিক বিধান জানিয়া নেওয়া প্রয়োজন।

    কোন শ্রেণীর দলিল রেজিস্ট্রি করতে হবে তা আইন স্পষ্ট করে বলে দিয়াছে। যে সমস্ত দলিল আইন অনুযায়ী অবশ্যই রেজিস্ট্রি করতে হবে, সেই সমস্ত দলিল রেজিস্ট্রি না হলে ঐ দলিল দ্বারা কোন আদান প্রদান প্রমাণিত হয় না।

    ধরুন, ওয়াহিদ তার একখানি জমি পাঁচ লাখ টাকা মূল্যে সাবেতের নিকট বিক্রয় করলেন। দলিল সঠিকভাবে লিখত হল কিন্তু রেজিস্ট্রি করা হল না। এই রেজিস্ট্রিবিহীন দলিল দ্বারা সাবেত দলিলের জমির উপর কোন স্বত্ব লাভ করেন না।

    স্থাবর সম্পত্তির দানের দলিল অবশ্যই রেজিস্ট্রি করতে হবে। তবে বাংলাদেশের মুসলমান ইসলামী আইনে তার স্থাবর সম্পাত্তি হিবা বা দান করতে পারে এবং হিবার জন্য দলিল রেজিস্ট্রির আবশ্যক হয় না। তবে দানের জন্য কোন দলিল লিখতে হয় তা হলে তা রেজিস্ট্রি করতে হবে।

    যে স্থাবর সম্পত্তির মূল্য একশত টাকা বা তার বেশি সেই স্থাবর সম্পত্তি সম্পর্কে প্রায় সকল প্রকার দলিল অবশ্যই রেজিস্ট্রি করতে হবে। যে দলিল দ্বারা স্থাবর সম্পত্তিতে কোন অধিকার বা সত্ত্ব বা অন্য যেকোন প্রকারের স্বার্থ সৃষ্টি হয়, ঘোষিত হয়, পরিবর্তিত হয়, প্রদত্ত হয়, সীমায়িত হয় এবং বিলুপ্ত হয় সেই দলিল অবশ্যই রেজিস্ট্রি করতে হবে। তবে উইলের ক্ষেত্রে এই বিধান প্রযোজ্য নয়।

    সম্পত্তির উপর অধিকার বা স্বার্থ নানা প্রকার দলিলের মাধ্যমে জন্মাতে পারে। ক্রয়, বন্ধক, লীজ, বিনিময় প্রভৃতির মাধ্যমে সম্পত্তি অর্জন করা যায় এবং এইভাবে স্বত্ব অর্জন করতে হলে তা রেজিস্ট্রিকৃত দলিলের মাধ্যমে করতে হয়। যে দলিল দ্বারা স্বত্ব ঘােষিত হয় বা খর্বিত হয় না নষ্ট হয়, সেই দলিল রেজিস্ট্রি করতে হবে।

    যে রসিদ দ্বারা কোন স্বত্ব বা অধিকার সৃষ্ট, ঘোষিত, খর্বিত, হস্তান্তরিত বা বিলুপ্ত হয় তাও রেজিস্ট্রি করতে হবে।

    লীজ করিবার চুক্তি দলিল রেজিস্ট্রি

    যে লীজ দলিল দ্বারা লীজগ্রহীতার বরাবরে তাৎক্ষণিকভাবে লীজভুক্ত সম্পত্তির দখল অর্পণ করা হয় সেই লীজ দলিল, যদি এক বৎসরের উর্ধ্বে মেয়াদী লীজ হয় কিংবা বাৎসরিক খাজনার শর্তে লীজ হয়, রেজিস্ট্রি করতে হবে।

    অন্যভাবে লীজ করিবার চুক্তি দলিল রেজিস্ট্রি করা বাধ্যতামূলক নয়। এক বৎসরের কম সময়ের জন্য লীজ হলে রেজিস্ট্রি দলিল দরকার নেই। যদি লীজ এক বৎসরের উর্ধ্বকালের জন্য হয় এবং দলিল রেজিস্ট্রি করা না হয়, তা হলে ঐ লীজ বেআইনী হবে না। সেই ক্ষেত্রে মনে করা হবে যে, লীজ এক বৎসরের জন্য বা এক মাসের জন্য করা হয়েছে।

    আদালতের ডিক্রি বা হুকুমনামা যদি কোন স্বত্ব সৃষ্টি বা বিলোপ করে তা হস্তান্তর করতে হলে রেজিস্ট্রি করতে হবে।

    যেই সমস্ত ক্ষেত্রে দলিল রেজিস্ট্রি করা আবশ্যক সেই সমস্ত ক্ষেত্রে দলিল রেজিস্ট্রি করতেই হবে। যেই সমস্ত ক্ষেত্রে দলিল রেজিস্ট্রি করা আবশ্যক নহে সেই সমস্ত ক্ষেত্রেও দলিল রেজিস্ট্রি করা যেতে পারে, এতে কোন ক্ষতি-বৃদ্ধি হয় না।

    দলিলের মধ্যে কাটা-ছেঁড়া বা পরিবর্তন থাকলে তা দলিল সম্পাদনকারী স্বাক্ষর করে প্রত্যয়ন করবেন; তা না হলে রেজিস্ট্রিকারী অফিসার ঐ দলিল রেজিস্ট্রি করতে অস্বীকার করবেন।

    বাংলাদেশে জমি রেজিস্ট্রেশান আইন এবং কিভাবে জমি রেজিস্ট্রেশান করবেন ২০২২ এ_ Best Law Firm In Bangladesh.png

    জমি রেজিস্ট্রেশান আইন-ঃ দলিলে সম্পত্তির বিবরণ

    দলিল দ্বারা সম্পত্তি সম্পর্কে অধিকার বা স্বত্ব সৃষ্টি অথবা বিলুপ্ত হয়। তাই যে দলিল দ্বারা এই সৃজন ও বিলাপন ঘটে সেই দলিলের মধ্যে সংশ্লিষ্ট সম্পত্তির সনাক্তযোগ্য বিবরণ থাকা উচিত।

    তা না থাকলে তা রেজিস্ট্রি করিবার জন্য গৃহীত না-ও হতে পারে।

    ধরুন হাফিয সাহেব তার শহরের বাড়িখানি বিক্রয় করতে চাহিলেন। দলিলের মধ্যে এই বাড়ির সনাক্তযােগ্য বিবরণ লিখতে হবে প্রথমে ঐ বাড়িখানি শহরের কোন রাস্তায় অবস্থিত তার পরিচয় লিখতে হবে। বাড়ির নম্বর লিখতে হবে। বাড়ির উত্তরে কে বা কারা আছে তা লিখতে হবে। বাড়িতে আগে কে থাকতেন তা লিখতে হবে।

    হাফিয তার গ্রামের জমিখানি বিক্রি করতে চাহিলে সেই ক্ষেত্রে তাকে ঐ জমির দাগ ও খতিয়ান, মৌজা, জেলা প্রভৃতি লিখতে হবে। ঐ জমি পূর্বাপর কে দখল করে আসিতেছিল, তাও লিখতে হবে।

    বাংলাদেশে জমি রেজিস্ট্রেশান আইনঃ দলিল সম্পাদন কাকে বলে? কত দিনের মধ্যে দলিল রেজিস্ট্রি করতে হয় ?

     

    সাধারণত, যে তারিখে দলিল সম্পাদিত হয় সেই তারিখ হতে চার (৪) মাসের মধ্যে ঐ দলিল রেজিস্ট্রি করিবার জন্য রেজিস্ট্রিকারী অফিসারের কাছে দাখিল করতে হবে।

    এবং চার মাসের বেশি দেরি হয়ে গেলে ঐ দলিল রেজিস্ট্রি করিবার জন্য গৃহীত হয় না। এই প্রসঙ্গে সম্পাদন কাহাকে বলে তা আপনার বুঝে নেওয়া প্রয়োজন। হাফিজ তার একখান জমি কবালা দলিলমূল্যে বিক্রয় করবেন। দলিল লেখককে হাফিজ তার জমির বিবরণ, ক্রেতার বিবরণ, তার স্বত্বের পরিচয়, মূল্যের পরিমাণ প্রভৃতি সকল জ্ঞাতব্য বুঝাইয়া দিলেন। দলিল লেখা হয়ে গেল।

    হাফিজ সাহেব কে তা পড়িয়া শুনান হল। তিনি বুঝিতে পারিলেন যে, দলিলখানা ঠিকমত লেখা হয়েছে অত:পর তিনি প্রতি পৃষ্ঠা তে স্বাক্ষর করলেন। এই স্বাক্ষর দ্বারা দলিলখানি সম্পাদিত হল।

    এই সমস্ত কাজ নিষ্পন্ন হয়ে গেলে স্বাক্ষরদানকে সম্পাদন বলে। সম্পাদনের সময় যে তারিখ দেওয়া হয় তাকেই সম্পাদনের তারিখ বলে ধরা হয়। 

     

     একাধিক ব্যক্তির দলিল সম্পাদন

    এমন অবস্থা হতে পারে যে, একটি দলিল একাধিক ব্যক্তি সম্পাদন করিল। সেই ক্ষেত্রে প্রত্যেক সম্পাদন হত চারি মাসের মধ্যে দলিল রেজিস্ট্রির জন্য দাখিল করতে হবে।

    তার নির্ধারিত সময়ের মধ্যে অনিবার্য কারণে দলিল রেজিস্ট্রির জন্য দাখিল করা না গেলে রেজিস্টারের নিকট দরখাস্ত করা যেতে পারে এবং রেজিস্টার চার মাসের বেশি দেরি না হলে রেজিস্ট্রেশন ফি-এর দশ গুণ পর্যন্ত জরিমানা করে তা রেজিস্ট্রির আদেশ দিতে পারেন। এই বিলম্ব মার্জনা করিবার জন্য সাব-রেজিস্টারের কাছে দরখাস্ত করা হলে তিনি তা তার রেজিস্ট্রারের নিকট পাঠাইবেন।

    বাংলাদেশের বাহিরে জমি রেজিস্ট্রেশন এর দলিল সম্পাদন

    কোন দলিল যদি বাংলাদেশের বাহিরে সম্পাদিত হয় তা হলে ঐ দলিল দেশে পৌছিবার চারি মাসের মধ্যে দাখিল করতে হবে।

    রেজিস্ট্রিকারী অফিসার দেশে দলিলটি পৌছিবার তারিখ সম্পর্কে সাক্ষ্য-প্রমাণ লইয়া যথার্থতা নির্ধারণ করতে পারবেন এবং উপযুক্ত ফি লইয়া তা রেজিস্ট্রি করতে পারবেন। উইল যে কোন সময় রেজিস্ট্রির জন্য দাখিল করা যায়, এই ব্যাপারে কোন তামাদি নেই।

    কোন অফিসে দলিল রেজিস্ট্রি হবে:

     

    এইবার আমরা দেখিব দলিল কোন অফিসে জমি রেজিস্ট্রেশন এর জন্য দাখিল করতে হয়। যে সমস্ত সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের এলাকায় সম্পত্তি অবস্থিত সেই সমস্ত সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে দলিল রেজিস্ট্রির জন্য দাখিল করতে হয়। সম্পত্তির অংশ যে সাব-রেজিস্ট্ি অফিসে অবস্থিত সেখানেও দাখিল করা যায়। তবে যে সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের এলাকায় সম্পত্তি অবস্থিত নহে সেই সাব- রেজিস্ট্রি অফিসে ঐ সম্পত্তির বিষয়ে দলিল রেজিস্ট্রি হলে দলিলের পক্ষবৃন্দ কোন প্রশ্ন উত্থাপন করতে পারবেন না।

     

     

    বাংলাদেশে জমি রেজিস্ট্রেশান আইন এবং কিভাবে জমি রেজিস্ট্রেশান করবেন ২০২২ এ_ Best Law Firm In Dhaka.png

    বাংলাদেশে জমি রেজিস্ট্রেশন আইন : জমি কে দাখিল করবে ? কিভাবে আম-মোক্তারনামা সম্পাদন করবেন?

    এবার দেখ যাক, জমি রেজিস্ট্রেশন এর জন্য কাহারা দলিল দাখিল করতে পারেন। যিনি দলিল সম্পাদন করেছেন কিংবা যিনি ঐ দলিলের দাবিদার কিংবা তাদের প্রতিনিধি বা আম-মোক্তারনামা দলিল দাখিল করতে পারেন।

    যিনি যে জেলার বা উপজেলার অধিবাসী তিনি সেই জেলায় বা উপজেলায় আম-মােক্তারনামা সম্পাদন করবেন: তিনি যদি বাংলাদেশের বাহিরে বাস করেন তবে নোটারি পাবলিকের সম্মুখে আম-মোক্তারনামা সম্পাদন করবেন।

    কোন ব্যক্তি যদি সাব-রেজিস্ট্রির বা রেজিস্ট্রার বা নােটারী পাবলিকের সামনে যেতে ব্যর্থ হন তা হলে তার অনুপস্থিতিতেও রেজিস্ট্রার, সাব-রেজিস্ট্রার বা নোটারি পাবলিক আম-মোক্তারনামা সহিমহর করতে পারবেন। এইভাবে সম্পাদিত আম-মোক্তারনামা শুধু রেজিস্ট্রিকারী অফিসারগণ গ্রহণ করতে পারবেন ।

    কোন দলিলের সম্পাদনকারী বা বৈধ প্রতিনিধি যদি উক্ত সম্পাদনের চারি মাসের মধ্যে দলিলটি রেজিস্ট্রিশনের জন্য রেজিস্টরি অফিসে দাখিল না করে, তা হলে রেজিস্ট্রিকারী অফিসার তা এই আইনমতে রেজিষ্ট্রি করবেন না।

    তবে শর্ত থাকে যে, সম্পাদনকারী উক্ত সময়ের মধ্যে দলিল না করিবার যােগ্য কারণ প্রদর্শন করতে পারিলে বা রেজিস্ট্রিকারীকে সন্তুষ্ট করতে পারিলে নির্ধারিত জরিমানা প্রদান সাপেক্ষে রেজিস্ট্রিকারী অফিসার উক্ত দলিল রেজিস্ট্রি করতে পারবেন।

    রেজিস্ট্রিকারী অফিসারকে কোন দলিল রেজিস্ট্রি করিবার পূর্বে উক্ত দলিলটি প্রকৃত ব্যক্তি কর্তৃক সম্পাদিত হয়েছে কিনা, অথবা মনােনীত ব্যক্তিকে উক্তরূপ ক্ষমতা প্রকৃতপক্ষে প্রদত্ত হয়েছে কিনা তা তদন্ত করিবার ক্ষমতা প্রদান করা হয়েছে।

    তবে শর্ত থাকে যে, এই বিধানসমূহ ডিক্রি বা হুকুমনামার নকলের ক্ষেত্রে প্রযােজ্য হবে না।

    দলিল সম্পাদনকারী বা সম্পাদনকারিগণ যদি ব্যক্তিগতভাবে রেজিস্ট্রি অফিসে উপস্থিত হয় এবং স্বীকার করে যে, দলিলাটি সে বা তারা সম্পাদন করেছে, তা হলে রেজিস্ট্রি অফিসার উক্ত দলিলটি রেজিস্ট্রি করবেন।

    রেজিস্ট্রিকারী অফিসার দলিলটির বৈধতা অথবা তার যথার্থতা প্রতিপাদন করতে পারবেন না। কারণ ইহা নির্ধারণ করিবার ক্ষমতা রেজিস্ট্রি অফিসারের নেই। রেজিস্ট্রি অফিসার শুধু লক্ষ্য এবং তদন্ত করবেন যে, উক্ত দলিলটি যোগ্য ব্যক্তি কর্তৃক থ্বেচ্ছায় সম্পাদিত হয়েছে কিনা। সুষ্ঠুভাবে সম্পাদিত হয়ে থাকলে তিনি তা রেজিষ্ট্রি করবেন, অন্যথায় না।

     যদি সম্পাদনকারীগণ (যাহাদের দ্বারা দলিলটি সম্পাদিত হওয়া আবশ্যক) উক্ত দলিলটির সম্পাদন অস্বীকার করে বা সম্পাদনকারীগণ যদি আহাম্মক বা মৃত হয় তা হলে রেজিস্ট্রি অফিসার তা রেজিস্ট্রি করতে অস্বীকার করতে পারিবে।

    যেকোন দাবিদার (দলিলের) যদি অপর কোন ব্যক্তিকে হাজির বা সাক্ষ্য দেওয়াইতে চায় তা হলে উক্ত ব্যক্তি অফিসার বা কোর্টের নিকট এই মর্মে সমন জারি চাহিতে পারবেন।

    আদালত প্রয়ােজন মনে করলে অথবা অফিসার প্রয়ােজন মনে করলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির নাম-ঠিকানাসহ অফিসে হাজির হবার তারিখ বা সময় উল্লেখ করে নােটিস প্রদান করবেন। যদি কোন ব্যক্তি শারীরিকভাবে অসুস্থ হয় বা দেওয়ানী অথবা ফৌজদারী কয়েদে আটক থাকে অথবা অন্য কোনভাবে ব্যক্তিগতভাবে উপস্থিত হওয়া হতে রেহাই পেয়ে থাকে তা হলে আদালত বা অফিস নিজে উক্ত ব্যক্তিদের নিকট যেয়ে জনাববন্দি গ্রহণ করবেন অথবা কমিশন নিয়ােগ করে জবানবন্দি গ্রহণ করবেন।

    যখন কোন ব্যক্তিকে পরীক্ষা করিবার জন্য কমিশন নিয়ােগ করা হয় তখন কাগজপত্র দাখিলের উপর ভিত্তি করে রেজিষ্ট্রেশন করা যাবে না, যতক্ষণ উতক্ত ব্যক্তি সম্পর্কে কমিশন কোন রিপাের্ট না দেন।

    কোন দলিল রেজিস্ট্রি না হলে যে সময় হতে কার্যকরী হত রেজিস্ট্রি হলেও তা ঐ সময় হতে কার্যকরী হবে অর্থাৎ সংক্ষেপে বলা যায় যে, কোন দলিল উক্ত দলিলটি সম্পাদনের তারিখ হতে কার্যকরী হবে, তার রেজিষস্ট্রেশনের তারিখ হতে নহে। তবে শর্ত থাকে যে, যদি কোন দলিলের রেজিষ্ট্রেশন অবৈধ হয় তা হলে এই বিধান প্রযােজ্য হবে না।

    একজন বিক্রেতা যদি একই সম্পত্তি একাধিক ব্যক্তির নিকট বৈধ জমি রেজিস্ট্রেশন এর মাধ্যমে হস্তান্তর করে তা হলে দুইটি দলিলের যেইটি প্রথমে সম্পাদিত হয়েছে তা আইন গ্রাহ্য হবে।

    ৭৭ ধারা মতে, মামলা করতে হলে উক্ত অস্বীকৃতি আদেশের ৩০ দিনের মধ্যে করতে হবে। কোন নাবালক ৩০ দিনের পর এই ধারা মতে মামলা করতে পারিবে না। এইরূপ মামলার রায়ে আদালত উক্ত সম্মতি অর্থাৎ দলিল রেজিস্ট্রি করিবার নির্দেশ দিলে তা রেজিস্ট্রিকরণ আইনে অনুসারে রেজিস্ট্রি করতে হবে।

    বাংলাদেশে জমি রেজিস্ট্রেশান আইন এবং কিভাবে জমি রেজিস্ট্রেশান করবেন ২০২২ এ_ Best Corporate Law Firm In Bangladesh.png

    “Tahmidur Rahman Remura is Considered as one of the leading firms in Company Law in Dhaka, Bangladesh”

    Bdlawfirms & Carpe Noctem Bangladesh

    যদি বাংলাদেশে কোন সাব-রেজিস্ট্রার জমি রেজিষ্ট্রেশনে অস্বীকৃতি জ্ঞাপন করেন

    সম্পাদনের অসম্মতি ব্যতীত অন্য কোন কারণে যদি সাব-রেজিস্ট্রার কোন দলিল রেজিস্টরি করতে অস্বীকৃতি জ্ঞাপন করেন তা হলে উক্ত আদেশের ৩০ দিনের মধ্যে তার উর্ধ্বতন রেজিস্ট্রারের নিকট এই আদেশের বিরুদ্ধে আপীল করা যাবে।

    সম্পাদনে অসম্মতির কারণে যদি সাব-রেজিস্ট্রার কোন দলিল রেজিস্ট্রি করতে অস্বীকার করেন তা হলে উক্ত আদেশের বিরুদ্ধে আপীল করা যাবে না। রেজিস্ট্রারের নিকট আপীল করা হলে রেজিস্ট্রার যেই আদেশের বিরুদ্ধে আপীল করা হয়েছে তা রদবদল করতে পারবেন।

    রেজিস্ট্রার যদি উক্ত দলিল রেজিস্ট্রিকৃত হবে বলে নির্দেশ দেন তা হলে উক্ত নির্দেশ দেওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে তা রেজিষ্ট্রেশনের জন্য সাব-রেজিস্ট্রারের নিকট দাখিল করতে হবে।

    ত্রিশ দিনের মধ্যে যদি উক্ত দলিল সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে রেজিস্ট্রিকরণের জন্য দাখিল করা হয় তা হলে সাব-রেজিস্ট্রির উক্ত দলিল এই আইনের আওতায় রেজিস্ট্রি করবেন।

    কোন দলিলের সম্পাদনকারী অসম্মতির (সম্পাদনে) কারণে যদি সাব-রেজিস্ট্রার দলিলটি রেজিস্ট্রি করতে অস্বীকার করেন তা হলে ক্ষতিগ্রস্থ ব্যক্তি আবেদন করতে পারবেন।

    কিন্তু তিনি আপীল করতে পারবেন না। দাবিদারের অবর্তমানে বা অনুপস্থিতিতে তার বৈধ প্রতিনিধি আবেদন করতে পারবেন। নাবালক হিন্দু স্ত্রীর পক্ষে তার স্বামী আবেদন করতে পারবেন।

    উক্ত আবেদনের সহিত উক্ত অস্বীকৃতির কারণের নকল সংযুক্ত করে দিতে হবে এবং আবেদনপত্রে আরজির ন্যায় সত্যপাঠ করতে হবে। এই ক্ষেত্রে আবেদনপত্র আরজি হিসাবে গণ্য হবে তামাদি সময় হল ৩০ দিন। অর্থাৎ আদেশের তারিখ হতে ৩০ দিনের মধ্যেই এই ধারার আওতায় আবেদন করতে হবে।

    রেজিস্ট্রার যদি সত্তুষ্ট হন যে, উক্ত দলিলটি সত্য সত্যই সম্পাদিত হয়েছে এবং প্রয়োজনীয় সকল পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়েছে তা হলে উক্ত দলিল রেজিস্ট্রি করার নির্দেশ দিবেন।

    উক্ত নির্দেশ পাওয়ার পর ৩০ দিনের মধ্যে দাবিদার যদি তা জমি রেজিস্ট্রেশন জন্য সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে দাখিল করে তা হলে সাব-রেজিস্ট্রার তা রেজিস্ট্রি করবেন।

    ইহা আইনত বৈধ জমি রেজিস্ট্রেশন বলে গণ্য হবে এবং তা প্রথম যে তারিখে রেজিস্ট্রেশনের জন্য দাখিল করা হয়েছিল সেই তারিখ হতে রেজিস্ট্রি হয়েছে বলে গণ্য হবে।

    সংশ্লিষ্ট সম্পত্তি তার জেলায় অবস্থিত নহে অথবা দলিলটি অন্য সাব-রেজিস্ট্রার কর্তৃক রেজিস্ট্রি হবে এই সকল কারণ ব্যতীত রেজিস্ট্রার অন্য কোন কারণে দলিল রেজিস্ট্রি করতে অস্বীকার করলে অথবা এই আইনের ৭২ এবং ৭৫ ধারা অনুসারে কোন দলল রেজিস্ট্রি করতে অস্বীকার করলে তাকে উক্ত আদেশের কারণসমূহ ২নং বহিতে লিখিয়া রাখতে হবে এবং যতি তাড়াতাড়ি সম্ভাব দাবিদারকে উক্ত কারণের নকল প্রদান করতে হবে।

    তবে জমি রেজিস্ট্রেশন এর শর্ত থাকে যে, রেজিস্ট্রারের কোন আদেশের বিরুদ্ধে কোন প্রকার আপীল চলিবে না। যখন কোন রেজিস্ট্রার এই আইনের ৭২ এবং ৭৬ ধারা অনুসারে দলিল রেজিস্ট্রি করিবার আদেশ দিতে অস্বীকৃতি জ্ঞাপন করেন তখন উক্ত দলিলের দাবিদার বা বৈধ প্রতিনিধি উক্ত অস্বীকৃতির আদেশ প্রদানের ৩০ দিনের মধ্যে উক্ত আদেশের বিরুদ্ধে দেওয়ানী আদালতে মামলা দায়ের করতে পারবেন।

    দলিল রেজিস্ট্রেশনে বাধ্য করিবার জন্য দেওয়ানী আদালতে মামলা দায়ের এই আইনের সংঘটন নহে। তবে শর্ত থাকে, রেজিস্ট্রার যখন ৭২ ধারা মতে, রেজিস্ট্রি করতে অস্বীকৃতি জ্ঞাপন করেন কেবল সেই ক্ষেত্রে ৭৭ ধারা মতে দেওয়ানী মামলা করা যাবে। স্বাধীনভাবে ৭৭ ধারা অনুসারে দেওয়ানী আদালতে মামলা করা যায় না।

    সাব-রেজিস্ট্রার এবং রেজিস্ট্রার কর্তৃক কোন দলিল রেজিস্ট্রি করতে অস্বীকৃতি জ্ঞাপন ৭৭ ধারা মতে দেওয়ানী মামলা করার পূর্বশর্ত।

    বাংলাদেশে জমি রেজিস্ট্রেশান আইন এবং কিভাবে জমি রেজিস্ট্রেশান করবেন ২০২২ এ_ Best Property Law Firm In Bangladesh.png

    দলিল রেজিষ্ট্রেশনের নতুন আইনের গুরুত্বপূর্ণ বিধানসমূহ –

     

    রেজিস্ট্রিকৃত দলিলের বিষয়ঃ  

     

    ভূমি হস্তান্তর সংক্রান্ত জাল-জালিয়াতি হ্রাস, একই ভূমি একাধিকবার বিক্রয় বন্ধ করা ও ভূমি সংক্রান্ত মামলা মকদ্দমা হ্রাসের উদ্দেশ্যে সরকার জমি রেজিস্ট্রেশন সংক্রান্ত চারটি আইনে (The Registration Act 1908, The Transfer of Property Act 1882, The Specific Relief Act 1877, The Limitation Act 1908) কিছু যুগউপযোগী সংশোধন করা হয়েছে।

    জুলাই ২০০৫ হতে উক্ত নতুন বিধিবিধানসমূহ কার্যকর হয়েছে। নিচে গুরুত্বপূর্ণ রিভিশন সমূহ উল্লেখ করা হল :

    (১) জমি রেজিস্ট্রেশন এর ক্ষেত্রে নিম্নোক্ত দলিলসমূহ অবশ্যই রেজিস্ট্রিকৃত হতে হবে অন্যথায় গ্রহণযোগ্য হবে না

    (ক) মুসলিম পারিবারিক আইন মোতাবেক হেবা দলিল।

    (খ) সম্পত্তি হস্তান্তর আইন অনুযায়ী সম্পাদিত বন্ধক দলিল।

    (গ) স্থাবর সম্পত্তি অংশীদার বা উত্তরাধিকারদের মধ্যে বণ্টননামা দলিল ।

    (ঘ) সম্পত্তি হস্তান্তরের বায়নানামা- এটি লিখত হতে হবে এবং সম্পাদনের ৩০ দিনের মধ্যে রেজিস্ট্রি করতে হবে। তবে ১ জুলাই ২০০৫ এর পূর্বে সম্পাদিত বায়নানামা ৩১ ডিসেম্বর ২০০৫ এর মধ্যে রেজিস্ট্রি করতে হবে।

       (২) দলিল সম্পাদনের ৩ মাসেের মধ্যে রেজিস্ট্রি করতে হবে।

       (৩) উত্তরাধিকার ব্যতীত অন্যান্য ক্ষেত্রে অবশ্যই বিক্রেতার নাম সর্বশেষ প্রকাশিত খতিয়ানে থাকতে হবে। প্রয়ােজনে নামজারির মাধ্যমে বিক্রেতার নাম খতিয়ানে অন্তর্ভক্ত করতে হবে। অন্যথায় জমি হস্তান্তর করলেও তা বাতিল হবে।

    (৪) উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত জমি বিক্রয়ের ক্ষেত্রে বিক্রেতার বা বিক্রেতা যার ওয়ারিশ তার নাম খতিয়ানে থাকতে হবে।

    (৫) সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ফরমের কলামসূহ যথাযথভাবে পুরণপূর্বক দলিল সম্পাদন করতে হবে। উক্ত ফরমেট ব্যতীত দলিল সম্পাদন বৈধ হবে না।

    (৬) দলিলের ক্রেতা বিক্রেতা উভয়ের ছবি সংযুক্ত করতে হবে ও বাম হাতের বৃদ্ধাঙুলির ছাপ দিতে হবে।

    (৭) দলিলে জমির প্রকৃতি, বাজার মূলয, জমির দৈর্ঘ্য, প্রস্থ ও চৌহদ্দির বর্ণনা থাকতে হবে।

    (৮) কমপক্ষে পূর্বের ২৫ বছরের সংক্ষিপ্ত মালিকানার ক্রমবর্ণনা বায়া দলিল নং ও তারিখ ইত্যাদি উল্লেখ করতে হবে।

    (৯) সম্পত্তি হস্তান্তরকারী/ বিক্রেতা কর্তৃক সম্পাদিত দলিলে এই মর্মে এফিডেফিট করতে হবে যে, তিনি উক্ত জমির আইনসংগত মালিক এবং ইতােপূর্বে তিনি অন্য কোথাও উক্ত জমি হস্তান্তর/বিক্রয় করেননি।

    (১০) বায়নাকৃত কোন স্থাবর সম্পত্তি উক্ত বায়নাচুক্তি আইনসংগতভাবে বাতিল না হওয়া পর্যন্ত অন্য কোথাও হস্তান্তর করা যাবে না, করলেও তা অকার্যকর হবে।

    (১১) প্রত্যেক বায়নানামায় তার মেয়াদ উল্লেখ করতে হবে। তবে কোন মেয়াদ উল্লেখ না থাকলে সম্পাদনের তারিখ থেকে ৬ মাস পর্যন্ত তা কার্যকর থাকবে।

    (১২) কান বন্ধকী সম্পত্তি বন্ধকগ্রহীতার লিখত অনুমতি ব্যতীত বিক্রয়, হস্তান্তর বা পুন:বন্ধক দেয়া যাবে না।

    (১৩) মুসলিম আইন অনুযায়ী স্বামী-স্ত্র মধ্যে, পিতা-মাতা ও সন্তানদের মধ্যে দাদা-দাদি ও নাতি-নাতনীর, মধ্যে, আপন ভাইদের মধ্যে, আপন বােনদের মধ্যে, আপন ভাই ও বােনদের মধ্যে সম্পদিত বা দলিলের ক্ষেত্রে রেজিষ্ট্রেশন ফি হবে মাত্র একশত টাকা

    (১৪) তামাদি আইন অনুযায়ী তামাদির সময়সীমা ৩ (তিন) বছরের পরিবর্তে ১ (এক) বছর করা হয়েছে।

    জমির হিস্যা লেখার পদ্ধতি :

    জমির পুরনাে দিনের রেকর্ড বা খতিয়ানে এবং হস্তান্তর দলিলের তফসিলের মালিকের জমির অংশ বা হিস্যা বিভিন্নভাবে (এককে) লেখার প্রচলন দেখা যায়, যেমন-আনা, কড়া, ক্রান্তি, গণ্ডা ইত্যাদি। বর্তমানে একক আধুনিক পদ্ধতিতে অর্থাৎ সহস্রাংশে (দশমিক দিয়ে) লেখা হয়। 

    ভূমি হস্তান্তর সংক্রান্ত জাল-জালিয়াতি হ্রাস, একই ভূমি একাধিকবার বিক্রয় বন্ধ করা ও ভূমি সংক্রান্ত মামলা মকদ্দমা হ্রাসের উদ্দেশ্যে সরকার রেজিস্ট্রেশন সংক্রান্ত চারটি আইনে (The Registration Act 1908, The Transfer of Property Act 1882, The Specific Relief Act 1877, The Limitation Act 1908) কিছু যুগউপযোগী সংশোধন করা হয়েছে।

    বাংলাদেশ এ প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি

    কিভাবে বাংলাদেশ এ আপনি আপনার প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি খুলবেন?

    আপনারা যদি একটি কোম্পানি খুলতে চান তার বিশদ বিবরণ এই পোস্টটি তে আছে।
    বাংলাদেশে জমি রেজিস্ট্রেশান আইন এবং কিভাবে জমি রেজিস্ট্রেশান করবেন ২০২২ এ_ Tahmidur Rahman Best Law Firm In Bangladesh.png

    তাহমিদুর রহমান সিএলপি কর্তৃক জমি রেজিস্ট্রেশান সম্পর্কিত আইনী সেবা:

    ব্যারিস্টার তাহমিদুর রহমান: সিএলপি একটি সনামধন্য ‘ল’ চেম্বার যেখানে ব্যারিস্টারস এবং আইনজীবীদের মাধ্যমে জমি রেজিস্ট্রেশান আইন সম্পর্কিত সকল প্রকার আইনগত সহায়তা, পরামর্শ প্রদান করে থাকে। কোন প্রশ্ন বা আইনী সহায়তার জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুনঃ-ই-মেইল: [email protected] ফোন: +8801847220062 or +8801779127165 , ঠিকানা: জামিলা ভিলা, ফ্ল্যাট-২সি, বাসা-৪/এ/১ (তৃতীয় তল), রোড-০২, গুলশান -১, ঢাকা-১২১২।

    How To Take Foreign Loans In Bangladesh 2022_ Overseas Financing For Bangladeshi Companies_ The Most Complete Guideline For Foreign Loans_Best Company Law Firm In Bangladesh

    জমি রেজিস্ট্রেশন সম্পর্কিত প্রশ্ন

    বাংলাদেশে পরিচালিত ভূমি জরিপ বা রেকর্ড গুলো কি কি?

    1. CS -Cadastral Survey

    2. SA- (1956)

    3. RS -Revitionel Survey

    4. PS – Pakistan Survey

    5. BS- Bangladesh Survey (1990)

    ক) সি.এস. জরিপ/রেকর্ড (Cadastral Survey)a

    “সিএস” হলো Cadastral Survey (CS) এর সংক্ষিপ্ত রূপ। একে ভারত উপমহাদেশের প্রথম জরিপ বলা হয় যা ১৮৮৯ সাল হতে ১৯৪০ সালের মধ্যে পরিচালিত হয়। এই জরিপে বঙ্গীয় প্রজাতন্ত্র আইনের দশম অধ্যায়ের বিধান মতে দেশের সমস্ত জমির বিস্তারিত নকশা প্রস্তুত করার এবং প্রত্যেক মালিকের জন্য দাগ নম্বর উল্লেখপুর্বক খতিয়ান প্রস্তুত করার বিধান করা হয়। প্রথম জরিপ হলেও এই জরিপ প্রায় নির্ভূল হিসেবে গ্রহণযোগ্য। মামলার বা ভূমির জটিলতা নিরসনের ক্ষেত্রে এই জরিপকে বেস হিসেবে অনেক সময় গণ্য করা হয়।

    খ) এস.এ. জরিপ (State Acquisition Survey)

    ১৯৫০ সালে জমিদারী অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ব আইন পাশ হওয়ার পর সরকার ১৯৫৬ সালে সমগ্র পূর্ববঙ্গ প্রদেশে জমিদারী অধিগ্রহনের সিদ্ধান্ত নেয় এরং রায়েতের সাথে সরকারের সরাসরি সম্পর্ক স্থাপনের লক্ষ্যে জমিদারদের প্রদেয় ক্ষতিপুরণ নির্ধারন এবং রায়তের খাজনা নির্ধারনের জন্য এই জরিপ ছিল। জরুরী তাগিদে জমিদারগন হইতে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে এই জরিপ বা খাতিয়ান প্রণয়ন কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছিল।

    গ) আর.এস. জরিপ ( Revisional Survey)

    সি. এস. জরিপ সম্পন্ন হওয়ার সুদীর্ঘ ৫০ বছর পর এই জরিপ পরিচালিত হয়। জমি, মলিক এবং দখলদার ইত্যাদি হালনাগাদ করার নিমিত্তে এ জরিপ সম্পন্ন করা হয়। পূর্বেও ভুল ত্রুটি সংশোধনক্রমে আ. এস জরিপ এতই শুদ্ধ হয় যে এখনো জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের ক্ষেত্রে আর, এস জরিপের উপর নির্ভর করা হয়। এর খতিয়ান ও ম্যাপের উপর মানুষ এখনো অবিচল আস্থা পোষন করে।

    ঘ) সিটি জরিপ (City Survey)

    সিটি জরিপ এর আর এক নাম ঢাকা মহানগর জরিপ। আর.এস. জরিপ এর পর বাংলাদেশ সরকার কর্তিক অনুমতি ক্রমে এ জরিপ ১৯৯৯ থেকে ২০০০ সালের মধ্যে সম্পন্ন করা হয়। এ যবত কালে সর্বশেষ ও আধুনিক জরিপ এটি। এ জরিপের পরচা কম্পিউটার প্রিন্ট এ পকাশিত হয়।

    জমি রেজিস্ট্রেশন করার জন্য কি কি প্রয়োজন হয় ?

    রেজিস্ট্রেশন করার জন্য কিছু তথ্যের প্রয়োজন হয়।
    জমি রেজিস্ট্রি করতে বিক্রিত জমির পূর্ণ বিবরণ উল্লেখ থাকতে হবে।
    দলিলে দাতা-গ্রহীতার পিতা-মাতার নাম, পূর্ণ ঠিকানা এবং সাম্প্রতিক ছবি সংযুক্ত করতে হবে।
    যিনি জমি বিক্রয় করবেন তার নামে অবশ্যই নামজারী (মিউটেশন) থাকতে হবে (উত্তরাধিকার ছাড়া)।
    বিগত ২৫ বছরের মালিকানা সংক্রান্ত সংক্ষিপ্ত বিবরণ ও সম্পত্তি প্রাপ্তির ধারাবাহিক ইতিহাস লেখা থাকতে হবে।
    সম্পত্তির প্রকৃত মূল্য, সম্পত্তির চারদিকের সীমানা, নকশা দলিলে থাকতে হবে।
    দাতা কর্তৃক বিক্রিত সম্পত্তি অন্য কারো কাছে বিক্রি করেনি মর্মে হলফনামা থাকতে হবে।
    জমির পর্চাসমূহে (সি.এস, এস. এ, আর.এস) মালিকানার ধারাবাহিকতা থাকতে হবে।
    বায়া দলিল (প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে) থাকতে হবে।

    বিভিন্ন প্রকার দলিল রেজিস্ট্রেশনের জন্য কি পরিমাণ ফিসের প্রয়োজন হয় ?

    দলিল রেজিস্ট্রি করা হয় রেজিস্ট্রেশন আইন,স্ট্যাম্প আইন, আয়কর আইন, অর্থ আইন ও রাজস্ব সংক্রান্ত বিধি এবং পরিপত্রের আলোকে। সকল দলিলের রেজিস্ট্রি ফিস সমান নয়। সরকার বিভিন্ন সময় সমসাময়িক বিবেচনা অনুযায়ী রেজিস্ট্রি ফিস নির্ধারণ করে থাকেন।

    জমি এর ক্ষেত্রে কর দেয়ার কি নিয়ম ?

    ভ্যাট ও উৎস কর সব সময়ই জমির বিক্রেতা প্রদান করবে। আয়কর আইন মতে, এই দুই ধরণের কর বিক্রেতার আয়ের ওপর ধার্য হয়। এই কর বিক্রেতার নামে সরকারি কোষাগারে জমা দিতে হয়। 


    উৎস কর ও ভ্যাট ছাড়া অন্যান্য সকল ধরণের কর জমির ক্রেতাকে পরিশোধ করতে হবে।

    সাব রেজিস্ট্রারের পরামর্শে ফজর আলী তার জমি রেজিস্ট্রি করে। এর ফলে তিনি জমি বেদখল হবার জটিলতা থেকে রক্ষা পায়।

    জমি রেজিস্ট্রেশন কোথায় করা হয়? জমি ক্রয় করলে যাচাই বাছাইয়ের জন্য কোথায় যেতে হবে?

    প্রতিটি উপজেলায় সাব-রেজিস্ট্রি অফিস আছে। সেখানে জমি রেজিস্ট্রি করা হয়।

    জমি ক্রয় করলে যাচাই বাছাইয়ের জন্য কোথায় যেতে হবেঃ 

    ইউনিয়ন ভূমি অফিস ও উপজেলা ভূমি অফিসে বিক্রিত জমির তফসিল নিয়ে জমিটি আগে বিক্রি হয়েছে কিনা, আগে অন্য কারো নামে নামজারী আছে কিনা, বিক্রয়ে উল্লেখিত দাগ, খতিয়ান, নকশা ঠিক আছে কিনা এবং সর্বোপরি সরেজমিনে বিক্রিত জমি আছে কিনা তার খোঁজ পাওয়া যাবে। প্রয়োজনে ভূমি অফিস থেকে সার্ভেয়ার (আমিন) নিয়ে জমি মেপে জমি ক্রয় করতে হবে।

    বন্ধকী দলিল রেজিস্ট্রি ফি কত?

    সম্পত্তি হস্তান্তর আইন ১৮৮২ এর ৫৯ ধারা মতে বন্ধকী দলিলের রেজিস্ট্রেশন ফি হলো-
    ক. বন্ধকী সম্পত্তির অর্থের পরিমাণ ৫ লাখ টাকার বেশি না হলে অর্থের ১%, তবে ২০০ টাকার কম নয় এবং ৫০০ টাকার বেশি নয়। যেমন: কোন সম্পত্তির পরিমাণ বিশ হাজার টাকা হলে ১% হিসেবে রেজিস্ট্রেশন ফি ২০০ টাকা, কিন্তু কোন সম্পত্তির পরিমাণ দশ হাজার টাকা হলে ১% হিসেবে রেজিস্ট্রেশন ফি ১০০ টাকা। আইনে সর্বনিম্ন ফি ২০০ টাকা হওয়ায় দশ হাজার টাকা পরিমাণের বন্ধকী জমির দলিল রেজিস্ট্রেশন ফি ২০০ টাকা-ই হবে (১০০ টাকা নয়)। একইভাবে চার লক্ষ টাকা পরিমাণের জমির দলিল রেজিস্ট্রেশন ফি ১% হিসেবে ৪০০০ টাকা কিন্তু আসলে ফি দিতে হবে ৫০০ টাকা কেননা আইনে সর্বোচ্চ ফি ধরা হয়েছে ৫০০ টাকা।
    খ. বন্ধকী সম্পত্তির অর্থের পরিমাণ ৫ লাখ টাকার বেশি এবং ২০ লাখ টাকার বেশি না হলে অর্থের ০.২৫%, তবে ১৫০০ টাকার কম নয় এবং ২০০০ টাকার বেশি নয়।
    গ. বন্ধকী সম্পত্তির অর্থের পরিমাণ ২০ লাখ টাকার বেশি হলে বন্ধকী অর্থের ০.১০% টাকা হারে,তবে ৩০০০ টাকার কম নয় এবং ৫০০০ টাকার বেশি হবে না।
    এ কথা মনে রাখতে রেজিস্ট্রেশন আইন ২০০৪ এর সংশোধন অনুযায়ী বন্ধকী সম্পত্তি গ্রহীতার লিখিত সম্মতি ছাড়া কোন বন্ধক দেয়া যাবে না এবং বন্ধকী সম্পত্তি বিক্রি করা যাবে না।
    কবলা বন্ধকী দলিল রেজিস্ট্রি ফিঃ 
    ক. স্ট্যাম্প শুল্ক ক্রয়মূল্যের....................৫%
    খ. রেজিস্ট্রি ফি ১-২৫০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রয়মূল্যের জন্য টাকা...........................................৫০/-
    গ. রেজিস্ট্রি ফি ২৫০১-৪০০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রয়মূল্যের জন্য ............................................২%
    ঘ. রেজিস্ট্রি ফি ৪০০১ হতে তদুর্ধ্ব বিক্রয়মূল্যের জন্য......................................................২.৫০%
    ঙ. হলফনামা ফি টাকা..........................................................................................৫০/-
    চ. পৌরকর: সিটি কর্পোরেশন/পৌর/টাউন/ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড এলাকার জন্য.............................১%
    ছ. উৎস কর: সিটি কর্পোরেশন/পৌর/টাউন/ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড এলাকার জন্য............................৫%
    জ. সিটি কর্পোরেশন/পৌর/টাউন/ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড এলাকা বর্হিভূত জমি বিক্রির
    ক্ষেত্রে জেলা পরিষদ ও ইউনিয়ন পরিষদ কর (১
    ঝ. সিটি কর্পোরেশন/পৌর/টাউন/ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড বর্হিভূত এলাকার ১ লাখ
    টাকার অধিক মূল্যের অকৃষি জমি বিক্রির ক্ষেত্রে বিক্রেতার উৎস কর.....................................৫%
    ঞ. মওকুফ: সিটি কর্পোরেশন/পৌর/টাউন/ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড এলাকার বাইরের ১ লাখ টাকার নিচে অকৃষি জমি ও অন্যান্য কৃষি/ভিটি/নামা ইত্যাদি) জমি বিক্রয়ের ক্ষেত্রে পৌর কর ও উৎস কর দিতে হবে না। কিন্তু জমি বিক্রির মূল্য ১ লাখ টাকার বেশি হলে, জমিটি অকৃষি হলে সে জমি পৌর এলাকার বাইরে হলেও তার জন্য ভ্যাট পরিশোধ করতে হবে.........................................................................৫%

    স্থাবর সম্পত্তি বিক্রয়ের বায়না দলিল ফি কত?

    হেবা দলিলের রেজিস্ট্রি ফিঃ

    ক. বিক্রয়যোগ্য সম্পত্তির বিক্রয়মূল্য ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত হলে রেজিস্ট্রি ফি হবে ৫০০ টাকা।

    খ. বিক্রয়যোগ্য সম্পত্তির বিক্রয়মূল্য ৫ লাখ টাকার বেশি এবং ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত হলে রেজিস্ট্রি ফি হবে ১০০০ টাকা।

    গ. বিক্রয়যোগ্য সম্পত্তির বিক্রয়মূল্য ৫০ লাখ টাকার বেশি হলে রেজিস্ট্রি ফি হবে ২০০০ টাকা।

    হেবা দলিলের রেজিস্ট্রি ফিঃ

    মুসলিম পারসোনাল ল’ অনুযায়ী স্বামী-স্ত্রী, পিতা-মাতা, সন্তান, দাদা-দাদী, নাতি-নাতনী, সহোদর ভাই-ভাই, সহোদর বোন-বোন, সহোদর ভাই-বোনের মধ্যে হেবা বা দান দলিলের রেজিস্ট্রি ফি মাত্র ১০০ টাকা।

    জমি বিক্রয় করতে জমি বিক্রেতার নামে নামজারী কি জরুরি?

    উত্তরাধিকার সূত্রে সম্পত্তি ছাড়া সকল সম্পত্তি বিক্রয় করার ক্ষেত্রে দাতার নামে নামজারী বাধ্যতামূলক।

    বাংলাদেশে পরিচালিত ভূমি জরিপ বা রেকর্ড গুলো কি কি?

    ভূমি জরিপকালে চূড়ান্ত খতিয়ান প্রস্তত করার পূর্বে ভূমি মালিকদের নিকট খসড়া খতিয়ানের যে অনুলিপি ভুমি মালিকদের প্রদান করা করা হ তাকে“মাঠ পর্চা”বলে। 

    এইমাঠ পর্চারেভিনিউ/রাজস্ব অফিসার কর্তৃক তসদিব বা সত্যায়ন হওয়ার পর যদি কারো কোন আপত্তি থাকে তাহলে তা শোনানির পর খতিয়ান চুড়ান্তভাবে প্রকাশ করা হয়। আর চুড়ান্ত খতিয়ানের অনুলিপিকে“পর্চা”বলে।

    জমির “মৌজা” কি? জমির “তফসিল” কাকে বলে?

    যখন CS জরিপ করা হয় তখন থানা ভিত্তিক এক বা একাধিক গ্রাম, ইউনিয়ন, পাড়া, মহল্লা অালাদা করে বিভিন্ন এককে ভাগ করে ক্রমিক নাম্বার দিয়ে চিহ্তি করা হয়েছে। আর বিভক্তকৃত এই প্রত্যেকটি একককে মৌজা বলে।

    “তফসিল” কাকে বলে?

    জমির পরিচয় বহন করে এমন বিস্তারিত বিবরণকে “তফসিল” বলে।

    ঈনফো-গ্রাফিক্স

    বাংলাদেশে জমি রেজিস্ট্রেশান আইন এবং কিভাবে জমি রেজিস্ট্রেশান করবেন ২০২২ এ_ Best Law Firm In Bangladesh.png

    Finance

    Investment

    জমি রেজিস্ট্রেশন আইন বাংলাদেশ

    Mediation in Bangladesh

    Mediation in Bangladesh: A Complete OverviewBarrister Remura MahbubDirector, Tahmidur Remura TLS, Law Firm in Bangladesh12 Nov 2022The purpose of this article is to explain the entire process of mediation in Bangladesh: provisions that regulate mediation, step...

    Joint Ventures in Bangladesh

    Joint Ventures in Bangladesh: Types, Formation, and AgreementsBarrister Remura MahbubDirector, Tahmidur Remura TLS, Law Firm in Bangladesh10 Nov 2022The purpose of this article is to provide an in-depth overview of joint ventures (JV) in Bangldesh: types of...

    VAT registration and enlistment in Bangladesh

    VAT registration and enlistment in Bangladesh Every company in the country must have a unique Business Identification Number (BIN). A business must first obtain a VAT registration certificate before applying for a BIN. The annual turnover of a business determines...

    VAT agent in Bangladesh

    When and why is a VAT agent required in Bangladesh? A non-resident entity that conducts business in Bangladesh but does not have a fixed place of business must appoint a VAT Agent in Bangladesh, according to the Value Added Tax and Supplementary Duty Act, 2012, and...

    Warisan and Succession Certificate in Bangladesh

    Warisan and Succession Certificate in Bangladesh Warisan and Succession Certificate in Bangladesh is a vital document used to identify the heirs or successors of a deceased person. The Warisan Certificate is issued by the Ward Councilor's Office in the City...

    How to get a Portugal Passport from Bangladesh

    Portugal Passport By Investment The three most common routes to Portuguese citizenship for expats are outlined below. 1. Portuguese Passport By means of Marriage: After three years of marriage to a Portuguese citizen, one can acquire Portuguese citizenship through...

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh • In order to apply for a work permit, foreign investors and employees must hold a PI (private investor) or E2/E3 (employment) VISA. • BIDA issues a letter of recommendation for obtaining a PI and E2/E3 VISA. • VoAs may be...

    A complete guide on Franchise Business Registration in Bangladesh

    Bangladesh is the seventh largest consumer of goods and services in the world. In Bangladesh, franchising is an established method for launching a business. The industries of transportation, beauty, fast food, education, wellness, mail delivery, clothing, and health...

    How to form an Association in Bangladesh

    How to form an Association in Bangladesh abd Section 28 of the 1994 Companies Act: Under section 28 of the Companies Act, a nonprofit organization may incorporate as a corporation. This Association will enjoy all the advantages of a limited liability company, but it...

    F-1 Student Visa from Bangladesh

    F-1 Student Visa from Bangladesh: The most common visa for students wishing to study in the United States is the F-1 student visa. It is a temporary visa for foreign students who wish to study at an accredited school or college in the United States. The United States...
    Pi Visa For Foreign Investor In Bangladesh

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh • In order to apply for a work permit, foreign investors and employees must hold a PI (private investor) or E2/E3 (employment) VISA. • BIDA issues a letter of recommendation for obtaining a PI and E2/E3 VISA. • VoAs may be...

    How To Form An Association In Bangladesh

    How to form an Association in Bangladesh

    How to form an Association in Bangladesh abd Section 28 of the 1994 Companies Act: Under section 28 of the Companies Act, a nonprofit organization may incorporate as a corporation. This Association will enjoy all the advantages of a limited liability company, but it...

    Traffic And Road Laws In Bangladesh

    Traffic and Road laws in Bangladesh

    Traffic and Road laws in Bangladesh The administration of traffic and enforcement of traffic laws in Bangladesh have always been a mess. Our nation's road construction has never been able to keep up with the rapid increase of vehicles. In recent years, however, the...

    F-1 Student Visa From Bangladesh

    F-1 Student Visa from Bangladesh

    F-1 Student Visa from Bangladesh: The most common visa for students wishing to study in the United States is the F-1 student visa. It is a temporary visa for foreign students who wish to study at an accredited school or college in the United States. The United States...

    K-2 Visa For Children Of Us Citizens

    K-2 Visa for Children of US Citizens

    K-2 Visa for Children of US Citizens A K-2 visa allows the children of a K-1 fiance visa holder to enter the United States until an immigrant visa becomes available. To be eligible for one of these nonimmigrant visas, the applicant must be under the age of 21 and the...

    চেক ডিসঅনার মামলা | কিভাবে চেক প্রতারনায় প্রতিকার পাবেন ২০২২ এ

    চেক ডিসঅনার মামলা | কিভাবে চেক প্রতারনায় প্রতিকার পাবেন ২০২২ এ

    চেক ডিসঅনার মামলা | কিভাবে চেক প্রতারনায় প্রতিকার পাবেন ২০২২ এ | Effective Solutions to Cheque Dishonour in 2022

    11 Jan 2022

    Best Advocate Lawyer Barrister In Bangladesh

    তাহমিদুর রহমান, Director and Senior Associate

    চেক ডিসঅনার মামলা এবং প্রতিকার – চেক একটি হস্তান্তরযোগ্য দলিল। একটি হস্তান্তরযোগ্য দলিল হল একটি কাগজের টুকরো যা একজন ব্যক্তিকে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ প্রদান করে এবং শুধুমাত্র অর্পণের মাধ্যমে ব্যক্তি থেকে ব্যক্তিতে স্থানান্তরিত হয়। এই পোস্টটিতে আমরা চেক ডিসঅনার অথবা বাউন্স করলে আপনারা কি করতে পারেন তা নিয়ে বিশদ পর্যালোচনা করব। 

    Table of Contents

    Find the subsections below, If you want to jump through specific sections instead of reading the whole article.

    চেক-ডিসঅনার-মামলা-_-Best-Company-Law-Firm-In-Bangladesh-2

    চেক ডিসঅনার কি? চেক ডিসঅনার মামলা 

    ঋণ বা বাধ্যবাধকতা নিষ্পত্তি করার জন্য দৈনন্দিন জীবনে চেক ব্যবহার করা হয়। তবে, অনেক ক্ষেত্রে, চেকের প্রাপককে চেক প্রদানকারী অর্থ প্রদান করতে অক্ষম হয় যদি চেকের উপর বর্ণিত পরিমাণ ইস্যুকারীর ( চেক প্রদানকারীর) অ্যাকাউন্টে না থাকে। অপর্যাপ্ত তহবিলের জন্য চেকটি ব্যাংক প্রত্যাখ্যান করে। এই ঘটনাটি চেক ডিজঅনার নামে পরিচিত।

    কি কারনে চেক ডিসঅনার হাতে পারে

    কখন এবং কি কারণে একটি চেক ডিসঅনার হাতে পারে পারে?

    • ব্যাংক হিসাবে আপনার যদি তহবিল বা অর্থের অভাব হয়। এবং যখন চেক এর উল্লিখিত অর্থ আপনার ব্যাংক এর বর্ণিত পরিমাণের চেয়ে কম।
    • যিনি চেক ইস্যু করেছেন তার স্বাক্ষর না মিললে ।
    • চেকে উল্লিখিত পরিমাণ এবং পরিমাণের মধ্যে পার্থক্য থাকলে।
    • চেকের মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে।
    • চেক সঠিকভাবে সম্পন্ন না হলে।
    • চেকে ঘষামাজা করলে অথবা চেক পরিবর্তন করলে।

     

    চেক ডিসঅনার মামলা | কিভাবে চেক প্রতারনায় প্রতিকার পাবেন ২০২২ এ | Effective Solutions To Cheque Dishonour In 2022

    কখন একটি চেক অসম্মানজনক অথবা ডিসঅনারড বলে বিবেচিত হয়?

     

    যদি চেকটি ইস্যু তারিখের ৬ মাসের মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে জমা করা হয় এবং ব্যাংকে চেকের সমপরিমাণ টাকা সেই একাউন্টে না থাকার কারণে ব্যাংক চেকটি প্রত্যাখ্যান করে, তবে চেকটি বিতরণযোগ্য হবে না। ব্যাঙ্ক একটি নথি জারি করবে যে আপনি কেন অসম্মান করেছেন।

    এ ক্ষেত্রে আপনি যদি চেক ইস্যু করার তারিখের ৬ মাসের মধ্যে ব্যাঙ্কে যান এবং চেকটি রিডিম করেন, আপনি দেখতে পাবেন যে চেকটি অনার এর জন্য দেওয়া হয়নি কিন্তু ফেরত দেওয়া হয়েছে, এবং আপনার এই আইনের অধীনে আইনি পদক্ষেপ গ্রহণের অর্থাৎ চেক ডিসঅনার মামলা করার সুযোগ সৃষ্টি হবে।

    অর্থাৎ, আপনার নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে, অর্থাৎ চেক ইস্যু করার তারিখ থেকে ৬ মাসের মধ্যে নগদীকরণের জন্য চেকগুলি অবশ্যই ব্যাঙ্কে জমা দিতে হবে।

    পরবর্তীতে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে অপর্যাপ্ত অর্থের কারণে, আপনাকে অবশ্যই চেকের অসম্মানের ৩০ দিনের মধ্যে অর্থ প্রদানের জন্য চেক প্রদানকারীকে আইনি নোটিশ দিতে হবে।

    যদি চেক প্রদানকারী নোটিশ পাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে চেক প্রদানকারীকে চেকটিতে উল্লেখিত পরিমাণ অর্থ প্রদান না করে, তাহলে চেক প্রাপক একটি প্রক্রিয়া দায়ের করতে পারেন।

    সংক্ষেপে প্রয়োজনীয় তিনটি ধাপ:

    • এই পদক্ষেপের ৩০ দিনের মধ্যে, আপনাকে অবশ্যই একটি নোটিশ সহ চেক প্রদানকারীকে অবহিত করতে হবে এবং অর্থপ্রদানের জন্য আহবান করতে হবে।
    • চেক দাতা সময়মতো চেকর অর্থ দেবে বা নোটিশ এর যথাযথ উত্তর আপনাকে জানাবেন।
    • যদি তিনি অর্থ প্রদান না করেন বা উনার অজুহাত আপনার কাছে উপযুক্ত মনে না হয়, তাহলে আপনি পরবর্তী ৩০ দিনের মধ্যে স্থানান্তরযোগ্য নথি আইন, 181 এর ধারা 138 এর অধীনে একটি মামলা করতে পারেন৷
    চেক-ডিসঅনার-মামলা-_-Cheque-Bounce-Law-Firm-In-Bangladesh-2

    চেক প্রতারনায় প্রতিকার ও চেক ডিসঅনার মামলা 

    নেগোশিয়েবল ইনস্ট্রুমেন্টস অ্যাক্ট (এনআই অ্যাক্ট) এর ধারা 138, 140 এবং 141 যদি একটি চেক প্রত্যাখ্যান করা হয় বা অপর্যাপ্ত তহবিলের কারণে অর্থ প্রদান না করা হয় তবে ক্ষতির বিরুদ্ধে সুরক্ষা অর্থাৎ চেক প্রতারনায় প্রতিকার প্রদান করে।

    কিভাবে নোটিশ দেবেন?

    আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পর্যাপ্ত টাকা না থাকলে এবং আপনার চেক অসম্মানজনক হলে, আপনাকে অবশ্যই চেক প্রদানকারীকে একটি বিধিবদ্ধ নোটিশ দিতে হবে এবং ৩০ দিনের মধ্যে অর্থ প্রদান করতে হবে।

    লিগ্যাল নোটিশ তিন ভাবে দেওয়া যেতে পারে।

    • নোটিশ গ্রহিতার হাতে সরাসরি নোটিশ প্রদান করে।
    • ডাকযোগে চেক প্রদানকারীর ঠিকানায় এবং সর্বশেষ বসবাসের ঠিকানায় প্রাপ্তি স্বীকারপত্র সহ নোটিশ প্রদান করে।
    • সর্বশেষ কোনো জাতীয় বাংলা দৈনিকে নোটিশটি বিজ্ঞপ্তি আকারে প্রকাশ করে।এ তিন পদ্ধতির যে কোন একটা পদ্ধতি অনুসরণ করলে হবে।

     

    একটি চেক ডিসঅনার মামলা দায়ের করতে আদালতে যে সকল কাগজ পত্র জমা দিতে হবে

    • চেক ইস্যুর তারিখ
    • ইস্যুকারির নাম ও তথ্য / কোন কোম্পানি হলে তার বিস্তারিত তথ্য
    • চেক ডিজঅনার হবার তারিখ
    • চেকের বিস্তারিত তথ্য [ব্যাংকের নাম, শাখা, হিসেব নম্বার, চেক নম্বর]
    • উল্লেখিত টাকার পরিমান
    • মূল চেক
    • ডিজঅনারের রসিদ
    • আইনি নোটিশ বা বিজ্ঞপ্তির কপি
    • পোস্টাল রসিদ – প্রাপ্তি রসিদ
    • চেক লেনদেন সম্পর্কিত তথ্য [যদিও সব সময় জরুরী নয়]
    চেক ডিসঅনার মামলা |বাংলাদেশ এ আপনি আপনার প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি

    মনে রাখবেন, একবার চেক অসম্মান করা হলে, একটি অপরাধ সংঘটিত হয়। যদি, কোনো কারণে, আপনি প্রথম চেকটি পরিশোধ করতে অস্বীকার করার ৩০ দিনের মধ্যে নোটিশ পাঠাতে অক্ষম হন,তাহলে দ্বিতীয়বার চেকটি ডিজঅনার করাতে পারেন। এভাবে একাধিক বার ডিজঅনার করিয়ে নোটিশ পাঠাতে পারেন।

    তবে একবার চেক ডিজঅনার হলে এবং নির্ধারিত সময়ের মধ্যে মামলা করা হলে এক অপরাধের জন্য বারবার মামলা করা যাবে না।

    মনে রাখবেন যে আপনাকে অবশ্যই একটি সময়মত এবং উপযুক্ত পদ্ধতিতে আইনি নোটিশ পাঠাতে হবে। এটি করার জন্য, আপনার একজন অভিজ্ঞ আইনজীবীর প্রয়োজন হবে, প্রয়োজনে আপনি আমাদের পেশাদার পরিষেবাগুলি গ্রহণ করতে পারেন৷ মনে রাখবেন, আপনাকে দ্রুত এবং সঠিকভাবে আইনি নোটিশ পাঠাতে হবে৷

    How To Take Foreign Loans In Bangladesh 2022| Overseas Financing For Bangladeshi Companies| The Most Complete Guideline For Foreign Loans_Best Company Law Firm In Dhaka

    “Tahmidur Rahman Remura is Considered as one of the leading firms in Company Law in Dhaka, Bangladesh”

    Bdlawfirms & Carpe Noctem Bangladesh

    চেক ডিজঅনার হলে কোথায় মামলা করবেন :

    অভিযোগ বা নালিশি মোকাদ্দমা  হিসেবে চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এবং যদি মেট্রোপলিটন এলাকার  হয় তার জন্য চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করতে হবে। মামলা দায়ের করার সময় আদালতে মূল চেক, ডিজঅনারের রশিদ, লিগ্যাল নোটিশ, পোস্টাল রশিদ, প্রাপ্তি স্বীকার রশিদ আদালতে প্রদর্শন করতে হবে।

     

    এসবের ফটোকপি ফিরিস্তি আকারে মামলার আরজীর সঙ্গে আদালতে জমা করতে হবে। আদালত মোকাদ্দমাটি গ্রহন করলে বিবাদীর নামে সমন অথবা ওয়ারেন্ট জারি করতে পারেন। ম্যাজিস্ট্রেট আদালত মামলা গ্রহন করলেও মামলাটি মূল বিচার করা হয় দায়রা আদালতে।

     

    চেক ডিজঅনার মামলা এ অপরাধের শাস্তি :

    চেক ডিজঅনার মামলা এ শাস্তি হচ্ছে, এক বছর মেয়াদ পর্যন্ত কারাদণ্ড অথবা চেকে বর্ণিত অর্থের তিন গুণ পরিমাণ অর্থদণ্ড অথবা উভয় দণ্ডে ও দণ্ডিত হতে পারে।

    এখন প্রশ্ন হল চেক ডিস-অনারের শাস্তি যদি চেকে উল্লেখিত টাকার ৩ গুন জরিমানা হয়,তাহলে টাকাটা কে পাবে?

    হস্তান্তরযোগ্য দলিল আইন,১৮৮১ এর ১৩৮(২) ধারার বলা হয়েছে,উপ-ধারা(১) মোতাবেক যেক্ষেত্রে অর্থদণ্ড আদায় হয় সেক্ষেত্রে আদায়কৃত অর্থদণ্ড হতে চেকে বর্ণিত টাকা যতদূর পর্যন্ত আদায়কৃত অর্থদণ্ড হতে প্রদান করা সম্ভব চেকের ধারককে প্রদান করতে হবে।

     

    চেক-ডিসঅনার-মামলা-_-কিভাবে-চেক-প্রতারনায়-প্রতিকার-পাবেন-২০২২-এ-2

    চেকের মামলা থেকে বাচতে চাইলে কি করতে হবে?

    অনেক সময় যখন আমরা একটি অবাঞ্ছিত চেক ডিজঅনার মামলা তে জড়িয়ে পড়ি, তখন আমাদের নিজেদের রক্ষা করতে কঠিন সময় যায়।

    সুতরাং এ বিষয়গুলো আমাদের খেয়াল রাখতে হবেঃ

     

    • এমনকি আপনি যদি খুব কাছের ব্যক্তি বা অফিস আপনার কাছে চান তবুও অন্যের কাজের জন্য চেক দেয়া যাবে না।
    • চেকবুকটি সাবধানে পাতা গুনে রাখতে হবে কোন বই বা পাতা হারারে সাথে সাথে ব্যাংকে জানাতে হবে এবং জিডি করতে হবে। 
    • যেখানে সম্ভব, অ্যাকাউন্ট পেচেক ব্যবহার করা আবশ্যক, ব্যবসার ক্ষেত্রে ব্যবসা একাউন্ট ব্যবহার করতে হবে এবং ব্যবসায়ীক একাউন্টে লেনদেন করতে হবে।
    • চেকের তারিখটি খুব সচেতনভাবে দিতে হবে এবং সেই তারিখটি মাথায় রেখে হিসাব পরীক্ষা করতে হবে।
    • যেকোন লেনদেনের জন্য চালান রাখতে হবে।
    • যদি বিপদে পরেই যান তবে দ্রুত একজন যোগ্য উকিলের সাহায্য নিয়ে বিষয়টি সমাধান করতে হবে।

    অন্নান্য আইনে চেক ডিসঅনারের মামলা

    হস্তান্তরযোগ্য নথি আইন ১৮৮১ বলবৎ রয়েছে, তবে আইনি সীমাবদ্ধতার কারণে, আইনটি বিলুপ্ত করা হয়েছে এবং নতুন এবং যুগোপযোগী আইন প্রণয়ন করা হয়েছে।

    যার নাম দেয়া হয়েছে বিনিময়যোগ্য দলিল আইন, ২০২০ (এখানে ক্লিক করে খসড়া আইনটি দেখে নিন) এবং এই আইনটির খসড়া গত ১৫ জানুয়ারি ২০২০ এ অর্থ মন্ত্রণালয় প্রকাশ করে। এই আইনে চেক ডিসঅনার হলে ৬ মাস থেকে ২ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড এবং সর্বোচ্চ ৪ গুন পর্যন্ত অর্থ দণ্ড দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

    যখনি খসড়া আইনটি একটি পূর্ণাঙ্গ আইনের মর্যাদা পাবে, আমরা আপনাকে এই আইনের বিশদ বিবরণ প্রদান করব; ততক্ষণ পর্যন্ত আমাদের সাথে থাকুন.

    ধরুন, কোনো কারণে এই আইনের অধীনে চেকের মামলাটি সঠিকভাবে প্রক্রিয়া করা সম্ভব হয়নি, বা ধরে নেওয়া হয়েছিল যে অর্থ উদ্ধার করা যাবে না। উদাহরণ স্বরূপ,

    ক) ৬ মাসের মধ্যে মামলা না হওয়ায় এ আইনে মামলাটি গ্রহণ করা হয়নি।
    খ) এই আইনের অধীন কার্যধারা চলাকালে অভিযুক্তের/ বিবাদীর মৃত্যু হয়।

    এই ধরনের পরিস্থিতিতে আরও দুটি বিকল্প খোলা আছে।

    ১) দন্ডবিধির অধীনে মামলা করা: দন্ডবিধি ৪০৬ ও ৪২০ ধারা  (প্রতারণা) অনুসারে ফৌজদারি মামলা করা যায়। কিন্তু এসব মামলার ক্ষেত্রে টাকা ফেরত পাওয়ার সুযোগ নেই। দোষী সাব্যস্ত হলে সাত বছর পর্যন্ত কারাদন্ড ও জরিমানা হতে পারে।
    ২) দেওয়ানী মামলা করা: চেকের সম্পূর্ণ টাকা আদায় না হলে পরবর্তীতে এখতিয়ার সম্পন্ন আদালতে দেওয়ানী মামলা করা যাবে।

     

    বাংলাদেশ এ প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি

    কিভাবে বাংলাদেশ এ আপনি আপনার প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি খুলবেন?

    আপনারা যদি একটি কোম্পানি খুলতে চান তার বিশদ বিবরণ এই পোস্টটি তে আছে।

    ব্যারিস্টার তাহমিদুর রহমান রিমুরা কর্তৃক চেক ডিসঅনার মামলা সম্পর্কিত আইনী সেবা:

    ব্যারিস্টার তাহমিদুর রহমান: সিএলপি একটি সনামধন্য ‘ল’ চেম্বার যেখানে ব্যারিস্টারস এবং আইনজীবীদের মাধ্যমে চেক ডিসঅনারের মামলা সম্পর্কিত সকল প্রকার আইনগত সহায়তা, পরামর্শ প্রদান করে থাকে। কোন প্রশ্ন বা আইনী সহায়তার জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুনঃ-ই-মেইল: [email protected] ফোন: +8801847220062 or +8801779127165 , ঠিকানা: রোড ২৯, হাউজঃ ৪১০, মহাখালী ডি ও এইচ এস, ঢাকা। 

    চেক ডিসঅনার মামলা | কিভাবে চেক প্রতারনায় প্রতিকার পাবেন ২০২২ এ | Effective Solutions To

    চেক ডিজঅনার মামলা সম্পর্কিত প্রশ্ন 

    চেকের মামলায় রায় পেতে কত সময় লাগে?

    চেক দিসঅনার এর মামলার রায় পেতে সাধারণত বছর খানেক সময় লাগতে পারে বা বেশীও সময় লাগতে পারে, অন্য দিকে রাজধানী ঢাকায় মামলার চাপ থাকায় স্বাভাবিক ভাবেই আরও বেশি সময় লাগে। কিন্তু এর মামলার উকিল এর যোগ্যতা অনুযায়ী মামলার সময় কমে আসতে পারে।

    আগাম চেক দিয়ে তারপর জিডি করলে কি হবে?

    আমাদের দেশে আগাম চেক দিয়ে অর্থের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার একটি প্রবণতা আছে কিন্তু বিষয়টি আইন সিদ্ধ নয়। কেউ চেক দিয়ে তারপর প্রতারণা করার জন্য বলে যে চেক হারিয়ে গিয়েছিল তবে তা গ্রহণযোগ্য হবে না। কিন্তু যেই ব্যক্তি চেক গ্রহীতা তিনি যদি যথাযথ ভাবে প্রমাণ না করতে পারেন যে বৈধ কোন কাজে চেকটা তিনি পেয়েছেন তবে রায় তার বিপক্ষে যেতে পারে।

    ভুয়া চেক দিলে কি হবে?

    ভুয়া চেক দিলে জাল-জালিয়াতি এবং প্রতারণার মামলা করা যায়।

    চেক ডিজঅনারের মামলা করতে হলে কি চুক্তি থাকতে হবে?

    না, আলাদা চুক্তি থাকার প্রয়োজন নেই।

    চেক হারিয়ে গেলে কি করবেন?

    চেক হারিয়ে গেলে যত দ্রুত সম্ভব আপনার নিকটস্থ থানায় গিয়ে একটি সাধারন ডাইরী (জিডি) করবেন। অথবা আপনার চেক যে স্থানে হারিয়ে গিয়েছে তার নিকটস্থ থানায় গিয়ে একটি সাধারন ডাইরী (জিডি) করতে পারেন।

    জিডির সত্যায়িত কপি হিসাবধারী ব্যক্তিগতভাবে ব্যাংক এর সংশ্লিষ্ট শাখায় উপস্থিত হয়ে জিডির কপিটি জমা দেবেন। এক্ষত্রে আপনার হারিয়ে যাওয়া চেক দিয়ে কেও আপনার ব্যাংক একাউন্ট থেকে টাকা উত্তোলন করতে পারবে না।

    আর আপনি যদি চেক ডিসঅনারের মামলা দায়ের করার পর মূল চেক, ডিজঅনারের রশিদ, পোস্টাল রশিদ, প্রাপ্তি স্বীকার রশিদ হারিয়ে ফেলেন তাহলে যে স্থানে হারিয়ে গিয়েছে তার নিকটস্থ থানায় গিয়ে একটি সাধারন ডাইরী (জিডি) করতে পারেন হবে। আপনার মামলার সাক্ষ্য গ্রহন সহ অনেক ক্ষেত্রে জিডির সত্যায়িত কপি প্রয়োজন হবে।

    আবার চেক ডিসঅনার হয়ার পর ডিসঅনার স্লিপ সহ চেক হারিয়ে গেলে এ বিষয়ে থানায় জিডি করে ১৩৮ ধারায় মামলা করা হয় তাহলে মামলার বাদীকে সাক্ষ্যকে সমর্থন করে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্মকর্তা সাক্ষ্য দিলে ধরে নেয়া হয় যে বাদী তার মামলায় উক্ত বিষয়ে প্রমানে সক্ষম হয়েছেন।

    চেক ডিজঅনারের মামলায় বাদী/আসামী মৃত্যু হলে চেকের কি হবে?

    চেক ডিজঅনারের মামলায় বাদী/আসামী কোন এক পক্ষ মারা গেলে মামলাটি শেষ হয়ে যায় অনেকে মনে করেন। ১৩৮ ধারায় চেক ডিজঅনারের মামলায় এমনটি ঠিক নয়। চেক ডিজঅনারের মামলা অন্য সকল ফৌজদারী মামলা থেকে একটু আলাদা এবং এটি কিছুটা দেওয়ানী প্রকৃ্তির হওয়ায় বাদী অথবা আসামীর মৃত্যুর কারনে মামলা শেষ হয়ে যায় না। বাদীর মৃত্যুর পর তার বৈধ প্রতিনিধি মালার বাদী প্রক্ষভুক্ত হয়ে মামলা পরিচালনা করতে পারবে। মামলা চলমান থাকা অবস্থায় আসামীর মৃত্যু হলে মামলার আরজী সংশোধন করে মামলা চলানো যায়। মামলা চলমান অথবা মামলা করার পূর্বে আসামীর মৃত্যু হলে বাদীর একমাত্র প্রতিকার হলো আসামীর বৈধ প্রতিনিধি বিরুদ্ধে দেওয়ানী আদালতে টাকা আদায়ের মামলা করে টাকা আদায়ের ব্যবস্থা করা।

    চেক ডিজঅনারের মামলায় অপরাধের শাস্তি কি হতে পারে?

    সকল সাক্ষ্য প্রমান, জেরা, যুক্তিতর্কের পর আদালত রায় প্রদান করবেন। অপরাধ প্রমান হলে আইন অনুসারে শাস্তি হিসেবে এক বছর কারাদন্ড অথবা চেকে উল্লেখিত অর্থের তিনগুণ পর্যন্ত অর্থদন্ড অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিত করতে পারেন।

    চেক ডিজঅনারের মামলায় আপিল কিভাবে করতে হবে?

    আদালতের রায়ের পরে আপিল করার সুযোগ রয়েছে। ১৩৮ ধারায় চেক ডিজঅনার মামলায় প্রদও দন্ডাদেশের বিরুদ্ধে আপীল করা যাবে। দায়রা জজ অথবা অতিরিক্ত দায়রা জজের দন্ডাদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্ট বিভাগে আপীল দায়ের করতে হবে এবং যুগ্ম দায়রা জজের দণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে দায়রা জজের নিকট আপীল করা যাবে।

    চেক ডিজঅনারের মামলায় আপীল করার পূর্বশর্ত কি কি?

    ১৩৮ ধারায় চেক ডিজঅনার মামলায় প্রদও দন্ডাদেশের বিরুদ্ধে আপীল করা্র আগে দন্ডাদেশের উল্লেখিত অর্থের ৫০% আদালতে জমা দিয়ে আপীল করতে হবে। ৫০% টাকা বিচারিক আদালতে জমা দিতে হবে অর্থাৎ যে আদালত শাস্তি প্রদান করেছেন সে আদালতে টাকা জমা দিতে হবে।

    চেক ডিজঅনার মামলার করার জন্য কি কি কাগজ প্রত্র আদালতে দাখিল করতে হবে?

    ১। মামলার আরজী/ দরখাস্ত।

    ২। লিগ্যাল নোটিশ এর ফটোকপি ।

    ৩। লিগ্যাল নোটিশ প্রেরনের ডাক রশিদ এবং এ.ডি এর ফটোকপি।

    ৪। মূল চেকের ফটোকপি।

    ৫। ডিসঅনার স্লিপ এর ফটোকপি।

    ৬। অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র।

    ঈনফো-গ্রাফিক্স

    চেক ডিজঅনার মামলা

    Finance

    Investment

    Mediation in Bangladesh

    Mediation in Bangladesh: A Complete OverviewBarrister Remura MahbubDirector, Tahmidur Remura TLS, Law Firm in Bangladesh12 Nov 2022The purpose of this article is to explain the entire process of mediation in Bangladesh: provisions that regulate mediation, step...

    Joint Ventures in Bangladesh

    Joint Ventures in Bangladesh: Types, Formation, and AgreementsBarrister Remura MahbubDirector, Tahmidur Remura TLS, Law Firm in Bangladesh10 Nov 2022The purpose of this article is to provide an in-depth overview of joint ventures (JV) in Bangldesh: types of...

    VAT registration and enlistment in Bangladesh

    VAT registration and enlistment in Bangladesh Every company in the country must have a unique Business Identification Number (BIN). A business must first obtain a VAT registration certificate before applying for a BIN. The annual turnover of a business determines...

    VAT agent in Bangladesh

    When and why is a VAT agent required in Bangladesh? A non-resident entity that conducts business in Bangladesh but does not have a fixed place of business must appoint a VAT Agent in Bangladesh, according to the Value Added Tax and Supplementary Duty Act, 2012, and...

    Warisan and Succession Certificate in Bangladesh

    Warisan and Succession Certificate in Bangladesh Warisan and Succession Certificate in Bangladesh is a vital document used to identify the heirs or successors of a deceased person. The Warisan Certificate is issued by the Ward Councilor's Office in the City...

    How to get a Portugal Passport from Bangladesh

    Portugal Passport By Investment The three most common routes to Portuguese citizenship for expats are outlined below. 1. Portuguese Passport By means of Marriage: After three years of marriage to a Portuguese citizen, one can acquire Portuguese citizenship through...

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh • In order to apply for a work permit, foreign investors and employees must hold a PI (private investor) or E2/E3 (employment) VISA. • BIDA issues a letter of recommendation for obtaining a PI and E2/E3 VISA. • VoAs may be...

    A complete guide on Franchise Business Registration in Bangladesh

    Bangladesh is the seventh largest consumer of goods and services in the world. In Bangladesh, franchising is an established method for launching a business. The industries of transportation, beauty, fast food, education, wellness, mail delivery, clothing, and health...

    How to form an Association in Bangladesh

    How to form an Association in Bangladesh abd Section 28 of the 1994 Companies Act: Under section 28 of the Companies Act, a nonprofit organization may incorporate as a corporation. This Association will enjoy all the advantages of a limited liability company, but it...

    F-1 Student Visa from Bangladesh

    F-1 Student Visa from Bangladesh: The most common visa for students wishing to study in the United States is the F-1 student visa. It is a temporary visa for foreign students who wish to study at an accredited school or college in the United States. The United States...
    Pi Visa For Foreign Investor In Bangladesh

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh • In order to apply for a work permit, foreign investors and employees must hold a PI (private investor) or E2/E3 (employment) VISA. • BIDA issues a letter of recommendation for obtaining a PI and E2/E3 VISA. • VoAs may be...

    How To Form An Association In Bangladesh

    How to form an Association in Bangladesh

    How to form an Association in Bangladesh abd Section 28 of the 1994 Companies Act: Under section 28 of the Companies Act, a nonprofit organization may incorporate as a corporation. This Association will enjoy all the advantages of a limited liability company, but it...

    Traffic And Road Laws In Bangladesh

    Traffic and Road laws in Bangladesh

    Traffic and Road laws in Bangladesh The administration of traffic and enforcement of traffic laws in Bangladesh have always been a mess. Our nation's road construction has never been able to keep up with the rapid increase of vehicles. In recent years, however, the...

    F-1 Student Visa From Bangladesh

    F-1 Student Visa from Bangladesh

    F-1 Student Visa from Bangladesh: The most common visa for students wishing to study in the United States is the F-1 student visa. It is a temporary visa for foreign students who wish to study at an accredited school or college in the United States. The United States...

    K-2 Visa For Children Of Us Citizens

    K-2 Visa for Children of US Citizens

    K-2 Visa for Children of US Citizens A K-2 visa allows the children of a K-1 fiance visa holder to enter the United States until an immigrant visa becomes available. To be eligible for one of these nonimmigrant visas, the applicant must be under the age of 21 and the...

    Contract Agreement| Breach of Contract | A complete overview of Contract Law in Bangladesh

    Contract Agreement| Breach of Contract | A complete overview of Contract Law in Bangladesh

    Contract Agreement & Breach of Contract in Bangladesh| A complete overview of Contract Agreement in Bangladesh

    Tahmidgoldenpicturebackground E1569742859700

    Tahmidur Rahman, Senior Associate, TR Barristers in Bangladesh

    12 Nov 2019

    Table of Contents

    Find the subsections below, If you want to jump through specific sections instead of reading the whole article.

    Best Law Firm In Dhaka Bangladesh

    This post in details will explain Contract Agreement & Breach of Contract in Bangladesh and remedies and consquences with detailed definitions and infographics, i.e will provide a complete overview of Contract Law in Bangladesh and everything you need to know about contracts and breach of contracts.

     

     

    Definition of Contract in regards to Law of Bangladesh 

     

    A contract is generally an agreement made between two or more parties or persons. In order for a contract to have legal effect under the Contract Act 1872, the following factors must be present:

     

    Contract Agreement & Breach of Contract in Bangladesh

    Breach of Contract in Bangladesh

    Before we deep dive into Contract Agreement & Breach of Contract in Bangladesh, let’s clarify our knowledge about the types of Breaches in Bangladeshi Law.

    There are four main types of contract breaches:

    1. Minor Breach:

      A minor contract breach occurs when a party fails to perform a part of the contract, but does not infringe the entire contract. To be considered a minor breach, the infringement must be so non-essential that any remaining contractual obligations may otherwise be fulfilled by all parties involved. A minor infringement is sometimes referred to as an unbiased infringement.

    2. Material Breach:

      A material violation of a contract is such a significant infringement, it severely impairs the contract as a whole; in addition, the infringement must make the object of the agreement fully defeated. Often, this is considered a complete violation.

    3. Fundamental breach:

      A fundamental breach of contract is exactly the same as a material breach, in that the non-breaching party is entitled to terminate the contract and claim damages in the event of a breach. The distinction is that a substantive breach is deemed to be much more egregious than a material breach; and

    4. Anticipatory Breach:

      An anticipatory breach happens when one party makes it clear to the other party, either orally or in writing, that they will not be able to fulfill contract terms. Therefore, the other party may immediately claim a contract violation and seek a settlement, such as reimbursement. Anticipatory violation may also be called anticipatory repudiation.

    If a party to a contract fails or refuses to meet his / her obligations under the contract (also contains an indication of reason for non-performance) is known as the breach of contract. (Contract Agreement & Breach of Contract in Bangladesh)

     

    Contract Agreement Law Firm In Dhaka Tahmidur Rahman

    “TR Barristers in Bangladesh Considered as one of the leading firms in Commercial Law in Dhaka, Bangladesh”

    Carpe Noctem Bangladesh

    Things the innocent party can do in breach of a contract in Bangladesh

    Contract terms, contracting parties rights and obligations and the effects of breach or violation of contract can be found in the 1872 Contract Act. The innocent party can lodge a claim for:

    • Specific performance of contracts
    • Compensation
    • Revocation of contracts after breach of contract

    Compensatory Damage:
    Upon breach of a contract, the party suffering from such breach shall be entitled to receive compensation from the wrongdoer. The Court is likely to conduct 3-tier tests in awarding the compensation as stipulated below:

    • Has there been a breach of contract? The answer is Yes.
    • Has there been a failure or injury arising from that breach? Yes should be the resolution.
    • Is the damage too remote? Answer is No.

      Final Stage: Court grants damages determining the loss number.

    Now the consequences of the breach of contract and remedies available in Bangladeshi contract law.

    A. Cases in which specific performance enforceable according to the Contract Law of Bangladesh

    Specific performance of any contract may be imposed at the Court’s discretion-

    1. Where the act agreed to be performed is in the service of a trust;
    2. Where there is no criterion for assessing the actual damage caused by the act agreed to be performed;
    3. Where the essence of the act agreed to be performed is such that monetary compensation for its failure to perform would not be sufficient
    4. When it is probable that monetary compensation cannot be obtained for the non-performance of the act agreed to be done.

      Since the order of particular performance is voluntary, the Court is not obligated to grant such relief merely because it is lawful to do so.

    The following contracts cannot be specifically enforceable-

    How ‘TR Barristers in Bangladesh’ help one of the contracting party in any agreement in Bangladesh

    Team Tahmidur Rahman | TR Barristers in Bangladesh Law Firm in Dhaka, Bangladesh is very astutue and outcome driven law firm, that has a vast amount of experience in dealing with contractual infringements, effects and demands for money. For legal aid or questions in regards to Contract Agreement & Breach of Contract in Bangladesh, please contact us at:

    E-mail: [email protected]
    Phone: +8801847220062 or +8801779127165
    House 410, Road 29, Mohakhali DOHS

    Corporate Contract Law Firm In Dhaka Bangladesh Tahmidur Rahman

     

    Contracts which is not enforceable according to the Contract Law of Bangladesh:

     

    • A contract for the non-performance of which compensation in cash is an adequate relief;
    • A contract which encompasses such a minute or numerous details, or which is so dependent on the parties ‘ personal qualifications, or otherwise by its nature, that the Court can not endorse the specific performance of its material conditions;
    • A contact with the duration of which the Court can not find reasonableContract for Sale: If the seller and buyer agree to sell or buy the property at a later stage, the seller and buyer must enter into a contract for sale.
    • A agreement establishes a contractual responsibility between the buyer and the seller, and
    • A contract for sale does not change ownership of the property. A sales contract in the sub-registry should be registered.
    • A contract made by trustees either in excess of their powers of in breach of their trust;
    • A contract concluded by or on behalf of a corporation or public company founded for special purposes or by the promoters of such a company which exceeds its powers;
    • A contract whose performance involves the performance of a continuous duty stretching over a period of more than 3 years from its date; and
    • A contract in respect of which a substantial part of the subject matter is deemed to be performed by both parties

     

    B. Monetary Compensation in Contract Agreement & Breach of Contract in Bangladesh

     

    1. Monetary compensation for loss or damage incurred by infringement:

    When a contract has been violated, the party arising from such violation is entitled to receive compensation from the party violating the contract for any loss or damage resulting from such infringement, which inevitably resulted from such infringement in the normal course of events.
    This compensation shall not be provided for any loss or damage caused internally or indirectly because of the breach.

    2. Compensation for violation of the contract: 
    Where a penalty has been levied for infringement of the contract, where a sum is specified in the contract as the amount to be paid in the event of such infringement, or where the contract includes any other clause by way of penalty, the party complaining of the infringement is entitled to receive from the contract, whether or not the actual damage or loss has been found to have been incurred thereby. The innocent party may also demand the section interest on the amount listed above.

     

    Damages For Breach Of Contract In Bangladesh Law Firm In Dhaka Tahmdiur Rahman
    Best Banking Law Firm In Dhaka Bangladesh Tahmidur Rahman

    C. Contract withdrawal

     

      Any person interested in a contract in writing may sue for having it withdrawn, and such withdrawal may be permitted by the Court in the following cases–where the contract is invalid or terminable by the plaintiff; where the contract is unlawful for reasons not apparent to the plaintiff and the defendant is more to blame than the plaintiff; where there is a decree for a contract specific;

     

    Contract Agreement & Breach of Contract in Bangladesh Services By TR Barristers in Bangladesh

     

    At TR Barristers in Bangladesh, as the leading law firm in Dhaka, we also already supported our clients in securing the full compensation for a broken contract by means of out – of-court settlement or litigation. We will inform our clients with full clarity on the steps that need to be taken to minimize the damage caused by the breach and also enable them to obtain the best possible solution in the event of damage that has already been sustained in Contract Agreement & Breach of Contract in Bangladesh.

     

     

     

    Breach Of Contract Remedies Law Firm In Dhaka Bangladesh Tahmidur Rahman 1

    Want new articles before they get published?
    Subscribe to our Awesome Newsletter.

    Mediation in Bangladesh

    Mediation in Bangladesh: A Complete OverviewBarrister Remura MahbubDirector, Tahmidur Remura TLS, Law Firm in Bangladesh12 Nov 2022The purpose of this article is to explain the entire process of mediation in Bangladesh: provisions that regulate mediation, step...

    Joint Ventures in Bangladesh

    Joint Ventures in Bangladesh: Types, Formation, and AgreementsBarrister Remura MahbubDirector, Tahmidur Remura TLS, Law Firm in Bangladesh10 Nov 2022The purpose of this article is to provide an in-depth overview of joint ventures (JV) in Bangldesh: types of...

    VAT registration and enlistment in Bangladesh

    VAT registration and enlistment in Bangladesh Every company in the country must have a unique Business Identification Number (BIN). A business must first obtain a VAT registration certificate before applying for a BIN. The annual turnover of a business determines...

    VAT agent in Bangladesh

    When and why is a VAT agent required in Bangladesh? A non-resident entity that conducts business in Bangladesh but does not have a fixed place of business must appoint a VAT Agent in Bangladesh, according to the Value Added Tax and Supplementary Duty Act, 2012, and...

    Warisan and Succession Certificate in Bangladesh

    Warisan and Succession Certificate in Bangladesh Warisan and Succession Certificate in Bangladesh is a vital document used to identify the heirs or successors of a deceased person. The Warisan Certificate is issued by the Ward Councilor's Office in the City...

    How to get a Portugal Passport from Bangladesh

    Portugal Passport By Investment The three most common routes to Portuguese citizenship for expats are outlined below. 1. Portuguese Passport By means of Marriage: After three years of marriage to a Portuguese citizen, one can acquire Portuguese citizenship through...

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh • In order to apply for a work permit, foreign investors and employees must hold a PI (private investor) or E2/E3 (employment) VISA. • BIDA issues a letter of recommendation for obtaining a PI and E2/E3 VISA. • VoAs may be...

    A complete guide on Franchise Business Registration in Bangladesh

    Bangladesh is the seventh largest consumer of goods and services in the world. In Bangladesh, franchising is an established method for launching a business. The industries of transportation, beauty, fast food, education, wellness, mail delivery, clothing, and health...

    How to form an Association in Bangladesh

    How to form an Association in Bangladesh abd Section 28 of the 1994 Companies Act: Under section 28 of the Companies Act, a nonprofit organization may incorporate as a corporation. This Association will enjoy all the advantages of a limited liability company, but it...

    F-1 Student Visa from Bangladesh

    F-1 Student Visa from Bangladesh: The most common visa for students wishing to study in the United States is the F-1 student visa. It is a temporary visa for foreign students who wish to study at an accredited school or college in the United States. The United States...
    Pi Visa For Foreign Investor In Bangladesh

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh

    PI Visa for foreign investor in Bangladesh • In order to apply for a work permit, foreign investors and employees must hold a PI (private investor) or E2/E3 (employment) VISA. • BIDA issues a letter of recommendation for obtaining a PI and E2/E3 VISA. • VoAs may be...

    How To Form An Association In Bangladesh

    How to form an Association in Bangladesh

    How to form an Association in Bangladesh abd Section 28 of the 1994 Companies Act: Under section 28 of the Companies Act, a nonprofit organization may incorporate as a corporation. This Association will enjoy all the advantages of a limited liability company, but it...

    Traffic And Road Laws In Bangladesh

    Traffic and Road laws in Bangladesh

    Traffic and Road laws in Bangladesh The administration of traffic and enforcement of traffic laws in Bangladesh have always been a mess. Our nation's road construction has never been able to keep up with the rapid increase of vehicles. In recent years, however, the...

    F-1 Student Visa From Bangladesh

    F-1 Student Visa from Bangladesh

    F-1 Student Visa from Bangladesh: The most common visa for students wishing to study in the United States is the F-1 student visa. It is a temporary visa for foreign students who wish to study at an accredited school or college in the United States. The United States...

    K-2 Visa For Children Of Us Citizens

    K-2 Visa for Children of US Citizens

    K-2 Visa for Children of US Citizens A K-2 visa allows the children of a K-1 fiance visa holder to enter the United States until an immigrant visa becomes available. To be eligible for one of these nonimmigrant visas, the applicant must be under the age of 21 and the...

    Call us!

    /* home and contact page javasccript */ /* articles page javasccript */