LAW FIRM IN BANGLADESH TRW LOGO TAHMIDUR RAHMAN

Contact No:

+8801708000660
+8801847220062

একতরফা তালাকের প্রক্রিয়া

একতরফা তালাকের, যা “অপরিবর্তনীয় তালাক” বা “তালাক” নামেও পরিচিত, বাংলাদেশে তাৎপর্যপূর্ণ সাংস্কৃতিক ও আইনগত গুরুত্ব রয়েছে। এই দক্ষিণ এশিয়ার দেশে একতরফা বিবাহবিচ্ছেদের প্রক্রিয়া এবং প্রভাব বোঝা যারা বিবাহের বিচ্ছেদকে বিবেচনা করছেন বা নেভিগেট করছেন তাদের জন্য প্রয়োজনীয়।

আইনি কাঠামো

বাংলাদেশে, বিবাহবিচ্ছেদের আইনি কাঠামো মূলত ধর্মীয় নীতির উপর ভিত্তি করে ব্যক্তিগত আইন দ্বারা পরিচালিত হয়। মুসলমানদের জন্য, বিবাহবিচ্ছেদের আইনগুলি ইসলামী আইনশাস্ত্র থেকে উদ্ভূত এবং প্রাথমিকভাবে মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশ, 1961 দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়৷ এই আইনগুলির অধীনে, উভয় স্বামী-স্ত্রীর বিবাহবিচ্ছেদের প্রক্রিয়া শুরু করার অধিকার রয়েছে, তবে প্রক্রিয়া এবং প্রয়োজনীয়তাগুলি পুরুষ ও মহিলাদের মধ্যে পৃথক৷

একতরফা তালাকের প্রক্রিয়া

1. স্বামীর দ্বারা তালাক

ইসলামী আইন অনুযায়ী, একজন মুসলিম স্বামী তার স্ত্রীকে একতরফাভাবে তালাক (তালাক) মৌখিক বা লিখিতভাবে উচ্চারণ করে তালাক দিতে পারেন। স্বামীকে অবশ্যই কিছু পদ্ধতিগত প্রয়োজনীয়তা মেনে চলতে হবে, যার মধ্যে একটি অপেক্ষার সময়কাল (ইদ্দাহ) পালন করা এবং এই সময়ের মধ্যে ভরণপোষণ প্রদান করা।

2. স্ত্রী কর্তৃক তালাক

যদিও একজন মুসলিম স্ত্রীরও তালাক চাওয়ার অধিকার রয়েছে, তবে তার বিকল্পগুলি তার স্বামীর তুলনায় আরও সীমিত। তিনি খুলার মাধ্যমে বিবাহ বিচ্ছেদের সূচনা করতে পারেন, একটি প্রক্রিয়া যেখানে তিনি তার স্বামীকে ক্ষতিপূরণ প্রদান করে বা তার আর্থিক অধিকার কেড়ে নিয়ে বিবাহ বিচ্ছেদ চান৷

3. আইনি কার্যক্রম

ধর্মীয় পদ্ধতির পাশাপাশি, বাংলাদেশে একতরফা বিবাহবিচ্ছেদের ক্ষেত্রে পারিবারিক আদালতে আইনি প্রক্রিয়া জড়িত থাকতে পারে, বিশেষ করে সন্তানের হেফাজত, রক্ষণাবেক্ষণ এবং সম্পদের ভাগের মতো বিষয়গুলির বিষয়ে। এই কার্যপ্রণালীর উদ্দেশ্য জড়িত উভয় পক্ষের জন্য ন্যায্যতা এবং অধিকারের সুরক্ষা নিশ্চিত করা।

সাংস্কৃতিক ও সামাজিক প্রভাব

কলঙ্ক ও সামাজিক চাপ

একতরফা বিবাহবিচ্ছেদের জন্য আইনি বিধান থাকা সত্ত্বেও, সামাজিক নিয়ম এবং সাংস্কৃতিক প্রত্যাশা প্রায়ই ব্যক্তিদের, বিশেষ করে নারীদের, তালাক চাইতে নিরুৎসাহিত করে। বিবাহবিচ্ছেদের সাথে যুক্ত কলঙ্ক, বিশেষ করে মহিলাদের জন্য, সামাজিক বঞ্চিতকরণ, অর্থনৈতিক অসুবিধা এবং সহায়তা পরিষেবাগুলিতে সীমিত অ্যাক্সেসের দিকে নিয়ে যেতে পারে।

অর্থনৈতিক দূর্বলতা

মহিলারা, বিশেষ করে, একতরফা বিবাহবিচ্ছেদের পরে অর্থনৈতিক দুর্বলতার সম্মুখীন হতে পারে, কারণ তাদের প্রায়ই সীমিত আর্থিক সংস্থান থাকে এবং তারা স্বাধীনভাবে নিজেদের এবং তাদের সন্তানদের সমর্থন করার জন্য সংগ্রাম করতে পারে। শিক্ষা, কর্মসংস্থানের সুযোগ এবং সামাজিক কল্যাণমূলক কর্মসূচীর অ্যাক্সেস এই চ্যালেঞ্জগুলি প্রশমিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

ডিভোর্সের যে আইনগুলোকে প্রয়োজন

ডিভোর্স কে দিতে পারেন

মানুষ থাকতে বা পরিবারের জন্য বিবাহ করেন। এ কারণে সাধারণত ডির্স বা বিবাহবিচ্ছেদ ব্যবহারকারী কাম্য নয়৷ কিন্তু বিশেষ পরিস্থিতি বিচ্ছেদ অনিবার্য হয়ে উঠছে। স্বামী বা স্ত্রী যে কেউ ডিভোর্স দিতে পারে৷ তবে স্ত্রী ডিভোর্স ক্ষেত্রে একটি শর্ত আছে। স্ত্রী পোর্টলের সময় নিহানামার ১৮ নম্বর কলামে যদি স্ত্রীকে ডিভোর্সে অধিকার দেওয়া হয়, তবে স্ত্রী ডিভোর্স দিতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে স্বামীর জন্য যে পদ্ধতিতে বলা হয়েছে, একই রকম স্ত্রীর জন্য প্রযোজ্য। তবে ডিভোর্সে অধিকার না দেওয়া থাকলে স্ত্রীর অধিকারে আবেদন করে ডিভোর্স দিতে পারবেন।


ডিভোর্সের প্রক্রিয়া

স্বামী বা তালাক নির্দেশনা গ্রহণ করা পরের সদস্যদের মধ্যে, পৌরসভার সিটি করপোরেশনের স্ত্রীকে একটি নোটিশ বলা হয়। স্বামী বাকেও নোটিশ কপিতে হবে। ব্যক্তিগত বা না নোট নোট প্রাপ্তির তারিখ থেকে ৯০ দিন পর্যন্ত কোনো বিবাহবিভাগ কার্যকর হবে না। নোটিশ প্রাপ্ত ৩০ দলের মধ্যে রাজনৈতিক দল বা পার্টির দ্বয়ের মধ্যে এ সালিসি অন্যান্য দুই দলের মধ্যে সমঝোতার চেষ্টা করবেন। ৩০ দিন সময় প্রাপ্ত এমপির বা এমপির নোটিশ তারিখ থেকে সমান করতে হবে।


পারস্পরিক মিলিটি ডিভোর্স

পারস্পারিক মিলিত সদস্যবিদের মধ্যে বেশি বেশি হচ্ছে ‘খুলা’। এই পদ্ধতিতে স্বামী-স্ত্রী পরস্পরের মধ্যে মিলিত স্ত্রীকে প্রদেয় দেনহর ও ভরণপোষণ প্রদান করে একইভাবে তাবিচ্ছেদ করে রেজিস্ট্রেশন করা। এ ক্ষেত্রে ৯০ নোটিশ প্রদানের প্রয়োজন না হয়। তবে এই প্রক্রিয়ায় বিচ্ছেদের পর স্ত্রীর নতুন বিয়ে করার ক্ষেত্রে ইদ্দত সময় তিন মাস পার হতে হবে।

ডিভোর্স কখন আদালতে

স্থানীয় ডিভোর্স আইন স্বামীকে তার স্ত্রীকে দিতে হলে আদালতে যেতে হবে না। তবে নিকাহনামার ১৮ নম্বর স্ত্রী দফা বা কলামে স্ত্রীকে ডিভোর্স কর্তৃত্ব অধিকার না জয়বিচ্ছেদ করার জন্য অনুরোধে আবেদন করতে হয়। ১৯৩৯ প্রথম আইনি আইনি বিবাহবিচ্ছেদ মহিলা আদালতে বিবাহবিচ্ছেদ আবেদন করতে পারবেন। আদালতে বিচারবিভাগীয়দের ডিক্রি প্রদানের জন্য সাতের মধ্যে একটি সত্যতাবাদী কপি আদালতের মাধ্যমে একটি ব্যক্তি বা দলের কাছে দিতে হবে। ন্যূনতম দিনে তালাক কার্যকরভাবে কার্যকর হবে

স্ত্রী অন্তঃসত্ত্বা থাকলে

তালাকঃ পরবর্তী স্ত্রী যদি অন্ত্ব্বা থাকেন, সে ক্ষেত্রে কিছু ভিন্নতর। তালাকের নোটিশ সংখ্যার ৯০ দিন পরও যদি স্ত্রী অন্তঃসত্ত্বা থাকেন, তাহলে যেদিন সন্তান ভূমিষ্ঠ হবে, তালাক কার্যকর হবে। এর আগে না। কিন্তু নোটিশ গনর ৯০ দিন যদি একজন মহিলাকে অবশ্যই ভূমিষ্ঠ করা হয়, স্বাভাবিক নিয়মে, অন্য ৯০ দিন পর তালা করতে হবে৷

বিবাহবিচ্ছেদ নিবন্ধন

মুসলিম ম্যারেজ অ্যান্ড ডিভোর্স রেজিস্ট্রেশন অ্যাক্ট, 1974-এর ধারা 6 অনুযায়ী, তালাক অবশ্যই রেজিস্ট্রি করতে হবে। তালাক গ্রহীতাকে তালাক নিবন্ধনের জন্য সংশ্লিষ্ট কাজীর কাছে আবেদন করতে হবে। কাজী নির্ধারিত ফি দিয়ে তালাক নিবন্ধন করবেন এবং বিনা মূল্যে সার্টিফাইড কপি ইস্যু করবেন।

বিবাহ বিচ্ছেদের কত দিন পর বিয়ে করা যাবে

সমস্ত আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ করে একটি পক্ষ বা উভয় পক্ষের সম্মতিতে বিবাহবিচ্ছেদ সম্পন্ন হওয়ার পরে যে কোনো সময় পুনর্বিবাহ করা যেতে পারে। তবে মহিলাদের ক্ষেত্রে খুলা তালাক সম্পন্ন হলেও পুনরায় বিয়ে করার আগে তিন মাস অপেক্ষা করতে হয়।

বিবাহ বিচ্ছেদের পরে প্রাক্তন পত্নীর সাথে পুনর্বিবাহ

তালাক কার্যকর হওয়ার পর যদি তালাকপ্রাপ্তা স্ত্রী পুনরায় গৃহীত হতে চায়, তাহলে তাকে পূর্বের নিয়ম অনুযায়ী পুনরায় বিয়ে করতে হবে। তবে, যদি তালাকপ্রাপ্ত স্বামী বা স্ত্রী তালাক দেওয়ার পর 90 দিনের মধ্যে তালাক গ্রহণ করতে চান, তবে তালাক প্রত্যাহার করতে হবে।

এ ক্ষেত্রে কোন বাধা থাকবে না। আপনি আগের মত একটি পরিবার থাকতে পারে. কারণ বিবাহবিচ্ছেদ সম্পূর্ণরূপে কার্যকর না হওয়া পর্যন্ত উভয় পক্ষই বৈধভাবে স্বামী-স্ত্রী থাকবে। (শফিকুল ইসলাম এবং অন্যান্য বনাম রাষ্ট্র, 46 ডিএলআর, পৃ. 700)। তাই এই ৯০ দিন পর্যন্ত স্বামীও তার স্ত্রীকে ভরণপোষণ দিতে বাধ্য।

তালাকের পর যৌতুক ও ভরণপোষণ

আমাদের দেশে একটা ভ্রান্ত ধারণা আছে যে, স্ত্রী তালাক দিলে যৌতুক পাবে না। এই ধারণাটি ভুল। স্ত্রী তাকে তালাক দিলেও যৌতুক পাবে। তালাক যাই হোক না কেন, স্ত্রীকে যৌতুক পেতেই হবে। তবে নিকাহনামায় কোনো উশুল লেখা থাকলে বকেয়া অর্থ পাবেন। যতদিন বিবাহ চলবে ততদিন স্বামী তার স্ত্রীকে উপযুক্ত পরিমাণ ভরণপোষণ দিতে বাধ্য। এমনটা হলে স্ত্রী যে কোনো সময় আইনের আশ্রয় নিতে পারেন।


হিন্দুদের তালাক

হিন্দু আইনে বিবাহবিচ্ছেদের কোন বিধান নেই। বৈবাহিক সম্পর্ক খারাপ হলে একজন হিন্দু স্ত্রী তার স্বামীর বিরুদ্ধে আলাদা ভরণপোষণ এবং আলাদা বাসস্থানের জন্য মামলা করতে পারে। যাইহোক, আমাদের দেশের হিন্দুদের মধ্যে অনেকেই বিবাহবিচ্ছেদের জন্য দেওয়ানী আদালতে ঘোষণামূলক মামলা দায়ের করেন।

খ্রিস্টান ডিভোর্স

খ্রিস্টান দম্পতি বিবাহবিচ্ছেদ করতে চাইলে জেলা জজ বা হাইকোর্ট বিভাগের কাছে আবেদন করতে হবে। ডিভোর্স অ্যাক্ট, 1869-এর ধারা 17 এবং 20-এর অধীনে বিবাহবিচ্ছেদ এবং বাতিল-সম্পর্কিত রায়গুলি হাইকোর্ট বিভাগের মাধ্যমে নিশ্চিত করতে হবে, যা অনেক মামলাকারীদের জন্য ঝামেলাপূর্ণ। যেহেতু আদালতের মাধ্যমে বিবাহবিচ্ছেদের প্রক্রিয়াটি জটিল, খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের অনেকেই হলফনামার মাধ্যমে বিবাহবিচ্ছেদ এবং পুনরায় বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। কিন্তু এটা আইনসম্মত নয়।

বিভিন্ন ধর্মের মধ্যে তালাক

স্পেশাল ম্যারেজ অ্যাক্টের অধীনে বিবাহিত হলে স্বামী বা স্ত্রী ইচ্ছামতো তালাক দিতে পারবেন না। এই আইন অনুযায়ী, কোনো পক্ষ তালাক দিতে চাইলে ১৮৬৯ সালের বিবাহবিচ্ছেদ আইন অনুযায়ী তাকে তালাক দিতে হবে। এ জন্য আদালতের শরণাপন্ন হতে হবে এবং আদালতের অনুমতি নিয়ে বিবাহবিচ্ছেদ করতে হবে। তালাকের নামে শুধু একটি হলফনামা পাঠানোকে তালাক বলা যায় না। যদি অন্য পক্ষ আদালতের অনুমতি ছাড়া তালাক সম্পন্ন করতে চায় তবে অপর পক্ষ তা চ্যালেঞ্জ করতে পারে।

বিবাহবিচ্ছেদ ছাড়া বিবাহের শাস্তি

বিবাহ সংক্রান্ত অপরাধের সংজ্ঞা এবং শাস্তি দণ্ডবিধি, 1860 এর ধারা 493 থেকে 498-এ বিশদভাবে বর্ণনা করা হয়েছে। আইনের 494 ধারা অনুযায়ী, স্বামী/স্ত্রী উপস্থিত থাকা অবস্থায় পুনর্বিবাহ করা একটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ। ওই ধারা অনুযায়ী, স্বামী বা স্ত্রী বর্তমান থাকা অবস্থায় পুনরায় বিয়ে করলে তা বাতিল বলে গণ্য হবে।

এই অপরাধ প্রমাণিত হলে প্রতারক স্বামী-স্ত্রীকে সাত বছরের কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডে দণ্ডিত করা হবে। তবে ব্যতিক্রমও আছে। যদি স্বামী বা স্ত্রী সাত বছর ধরে ব্রহ্মচারী হয়ে থাকেন এবং তারা জীবিত আছেন এমন কোনো তথ্য পাওয়া যায় না-এমন পরিস্থিতিতে পুনর্বিবাহ করা কোনো অপরাধ হবে না।

এ ছাড়া বর্তমান স্ত্রীর অনুমতি সাপেক্ষে বিশেষ পরিস্থিতিতে একজন স্বামী সালিসী ট্রাইব্যুনালে পুনর্বিবাহের আবেদন করতে পারেন। সালিসি ট্রাইব্যুনাল এটি যাচাই-বাছাই করে বিয়ের অনুমতি দিতে পারে। সেক্ষেত্রে পুনর্বিবাহ অপরাধ বলে গণ্য হবে না।

পূর্ববর্তী বিবাহ গোপন রেখে প্রতারণার মাধ্যমে পুনরায় বিবাহ করা 495 ধারা অনুসারে দণ্ডনীয় অপরাধ৷ এই ধারায় দোষী সাব্যস্ত হলে ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড ও জরিমানা হবে। কেউ যদি জেনেশুনে অন্যের স্ত্রীকে বিয়ে করে তবে তা দণ্ডবিধির 494 ধারা অনুযায়ী বাতিল করা হবে। এই ক্ষেত্রে এটি দণ্ডবিধির 497 ধারা অনুযায়ী ব্যভিচার হিসাবে শাস্তিযোগ্য অপরাধ। দোষী সাব্যস্ত হলে পাঁচ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড এবং জরিমানা হতে পারে।


মামলা কোথায় করবেন?

বিবাহ সংক্রান্ত কোনো অপরাধ হলে সরাসরি আদালতে মামলা করতে হবে। এক্ষেত্রে মামলার প্রমাণ হিসেবে বিয়ের সার্টিফিকেট ও অন্যান্য প্রমাণাদি জমা দিতে হবে এবং একজন আইনজীবী নিয়োগ করতে হবে। আপনি যদি মামলার বিচার করতে না পারেন, তাহলে আপনাকে জেলা আইনগত সহায়তা কর্মকর্তার কাছে আবেদন করতে হবে।

উপসংহার

বাংলাদেশে একতরফা বিবাহবিচ্ছেদ ধর্মীয়, আইনি, সাংস্কৃতিক এবং সামাজিক কারণগুলির সংমিশ্রণ দ্বারা প্রভাবিত হয়। যদিও আইনি কাঠামো বিবাহবিচ্ছেদের উপায় প্রদান করে, প্রক্রিয়াটির মধ্য দিয়ে নেভিগেট করা জটিল হতে পারে, বিশেষত লিঙ্গ সমতা, সামাজিক কলঙ্ক এবং অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের বিষয়গুলির বিষয়ে। সচেতনতা বৃদ্ধি, শিক্ষার প্রসার এবং সকল ব্যক্তির অধিকার ও মর্যাদা সমুন্নত রাখে এমন আইনী সংস্কারের পক্ষে কথা বলার মাধ্যমে, বাংলাদেশ যারা একতরফাভাবে তাদের বিবাহ বন্ধ করতে চায় তাদের জন্য আরও ন্যায়সঙ্গত এবং সহায়ক পরিবেশের দিকে এগিয়ে যেতে পারে।

Other posts you might like

Contract Under Bangladeshi Law

Contract Under Bangladeshi Law

The 6 Essential Elements of a Contract Under Bangladeshi Law As in many other jurisdictions, a Contract Under Bangladeshi Law is considered legally enforceable when it incorporates six essential elements: Offer, Acceptance, Awareness (also known as Consensus Ad Idem...

Call us!

× WhatsApp!
/* home and contact page javasccript *//* articles page javasccript */