LAW FIRM IN BANGLADESH TRW LOGO TAHMIDUR RAHMAN

Contact No:

+8801708000660
+8801847220062

দেওয়ানী কার্যবিধি 2024

সিভিল প্রসিডিউর রুলস ( সিপিআর ) 1997 সালে সিভিল প্রসিডিউর অ্যাক্ট 1997  অনুসারে দ্বারা প্রবর্তিত হয়েছিল এবং এটি , হাইকোর্ট অফ জাস্টিস এবং  ডিসকাউন্ট দ্বারা নিয়ম  । ওয়েলসে  দেওয়ানী  এবং আলোচনা  । এ 26 এপ্রিল 1999 এর পর শুরু সমস্ত আলোচনার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য এবং ন্যায়নিষ্ঠ নিয়ম নীতির নিয়ম এবং নিয়মের নিয়মকে প্রতিস্থাপন করে৷ সিভিল প্রসিডিউর রুলস 1998 হল নিয়মগুলি একটি সংবিধিবদ্ধ উপকরণ।

সিপি নন-আইনদের জন্য আইনী কার্যক্রমকে, দ্রুত এবং সহজে দ্রুততার মাধ্যমে ন্যায়বিচারের উন্নত উন্নত করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। এর ফলশ্রুতিতে, অনেক প্রাচীন উদাহরণ পদকে সরল ইংরেজি সমতুল্য দিয়ে প্রতিস্থাপিত করা হয়েছিল, যেমন “বাদী” এর জন্য “দাবীদার” এবং “সাবপোনা” এর জন্য “সাক্ষী সমন”।

পূর্ববর্তী নিয়মের বিপরীতে, সিপিআর তাদের “ওভাররাইডিং উদ্দেশ্য” এর একটি বিবৃতি দিয়ে শুরু করা হয়, উভয়ই সুনির্দিষ্ট নীতির প্রয়োগে সহায়তা করতে এবং যেখানে কোনো নির্দিষ্ট নিয়ম প্রযোজ্য নয় এমন আচরণ নির্দেশিত।

মামলা দায়ের – দেওয়ানী মামলার বিভিন্ন পর্যায়


দেওয়ানী প্রশ্নর প্রক্রিয়া শুরু হয় এখতিয়ারভুক্ত আদালতের সেরেস্তাদারের সামনে আরজি দাখিল মাধ্যমে। আরজীর সাথে যোগ করা সকল চিঠিপত্র দাখিল করতে হবে। এর সাথে ডাক টিকেট সমন-নোটিশ ও সমাধান ফিখি দাল করতে হবে। সংক্ষেপে গণনামাঙ্ক ফাইলিং হলে সেরেস্তাদার রিপোর্টিং ফাইলিং রেস্ট্রারে কোডার পার্টির নাম, সমর ধরন, গুটিকর কোড ইত্যাদি লিপিবদ্ধ করবে।


সমন জারি


বলবেন যেভাবে প্রশ্ন করা হলে সবাইকে বিবাদীর উপর সমন্বিত করবে। আদালত থেকে সকল বিবাদীর সমন্বিত জারি করার দেশকে তার বিরুদ্ধে একটি প্রশ্ন উল্লিখিত হয়েছে সে সম্পর্কে তাকে অবহিত করা হয়েছে, নির্দিষ্ট করে আদালতে স্বপক্ষে উপস্থিত হওয়া এবং তার পক্ষকে দাখিল করার জন্য নিদ্রা প্রদান করা হয়েছে। আদালত থেকে সমন্বিত জারীকারক নিজে সমন্বিত একটি কপি বিবাদীকে প্রদান করবেন এবং একটি সমন্বিত বিপরীত প্রতিক্রিয়া যা সমনজারী হয়েছে এছাড়াও ভিন্ন ভিন্নভাবে বিবাদীর সমন জারি করতে পারে।

বিকল্পভাবে বিরোধ নিষ্পত্তি (ADR) :


বিবাদী তার স্বামী দাখিল পরের পক্ষের আইনজীবী আদালতে উপস্থিত থাকেন তাহলে আদালতে মামালার শুনানি মুলতবী করে ১৯০৮ সালে দেওয়ানীর কার্যবিধির ৮৯ বা ৮৯খ ধারার সদস্যদের মধ্যে বিরোধিতাকারীর জন্য বিচারক বাহিরে মধ্যতার মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করবেন।


ইসু বা বিচার্য বিষয় নির্ধারন


উভয় পক্ষের আদালতের বাহিরে মধ্যতার মাধ্যমে তাদের বিরোধিতা করতে ব্যর্থ হন তাহলে উত্তরের পরবর্তী কার্যক্রম শুরু হবে। ইস্যু গঠন বা বিচার্য বিষয়ের উপর মোকদ্দমাটির বিচার তা নির্ধারণ করা হবে। ১৯০৮- আইএস দেওয়ানী কার্যবিধির আদেশ, নিয়ম-১ অনুযায়ী প্রশ্নর প্রথম তারিখ শুনলে বা ব্যক্তিগত দাখিলের মধ্যে যে পরবর্তী সক্রিয় থেকে ১৫ এর মধ্যে গঠন করতে হবে।

ধারা 30 এ ব্যবস্থা


আদালত যে কোন সময় স্বতঃ প্রবৃত্ত হওয়া অথবা কোন পক্ষের আবেদনের জন্য অনুরোধ- প্রশ্নাবলী সরবরাহ ও তথ্যদান, দলিল ও গ্রহন এবং সাক্ষ্য হিসাবে দাখিল যোগ্য দলিল বা অন্য কোন পথ, পরিদর্শন, দাখিল বা ফেরৎ সম্পর্কে অনুরোধ জানাতে পারেন। আমরা যার স্বাক্ষ্য প্রদর্শনের জন্য বা উপরোক্ত দলিলাদির নির্দেশ দিতে তার উপস্থিতি প্রয়োজন তার প্রতি আদালতে সমন করতে পারেন এবং কোন হলফনামা যোগ করতে পারেন।


চূড়ান্ত শুনানির জন্য তারিখ নির্ধারণ (SD)


৩০ ধারার পদক্ষেপ এর পর আদালত মামলার চুড়ান্ত শুনানীর জন্য তারিখ নির্ধারণ করবেন। দেওয়ানী কার্যবিধি- ১৯০৮ এর আদেশ -১৪ বিধি ৮ অনুযায়ী ইস্যু গঠনের ১২০ দিনের মধ্যে মামলার চূড়ান্ত শুনানীর দিন ধার্য করতে হয়। পক্ষদ্বয়কে তাদের নিজ নিজ পক্ষে মামলা প্রমানের জন্য সাক্ষীর তালিকা না দিয়ে থাকলে তাহলে আদালত সাক্ষীদের তালিকা দিতে বলবেন ।


চূড়ান্ত শুনানি (PH)


এ পর্যায়ে উভয় পক্ষের সাক্ষীদের জবানবন্দি রেকর্ড করবেন আদালত। এক পক্ষের সাক্ষীকে অন্য পক্ষের নিযুক্ত কৌঁসুলির দ্বারা জেরা করা হবে এবং আদালত কর্তৃক রেকর্ড করা হবে। কোনো ধরনের দালিলিক প্রমাণ থাকলে তা আদালতে পেশ করবে দলগুলো

অধিকতর শুনানী বা (FPH)


1908 সালের সিভিল প্রসিডিউর কোড- অর্ডার-18-এর 19 নং বিধি অনুযায়ী, চূড়ান্ত শুনানির তারিখ থেকে 120 দিনের মধ্যে মামলার শুনানি শেষ করতে হবে। আদালত প্রথম দিনেই মামলার সব সাক্ষীর জবানবন্দি রেকর্ড করতে ব্যর্থ হলে তাকে বলা হয় এফপিএইচ।


যুক্তি


মামলার শুনানি শেষে উভয় পক্ষের সাক্ষীদের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে বাদী-আসামিপক্ষের নিযুক্ত আইনজীবী আদালতে তাদের পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করবেন। মামলার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সব বিষয় সংক্ষিপ্তভাবে আদালতের সামনে উপস্থাপন করা হবে। যুক্তি অবশ্যই পরিষ্কার এবং বৈধ হতে হবে। যুক্তিতর্ক শেষে রায় ঘোষণার দিন ধার্য করবে আদালত।


রায় ঘোষণা 


সাধারণত যুক্তিতর্ক শুনানির পর একটি নির্দিষ্ট তারিখে আদালত মামলার রায় ঘোষণা করবেন। সিভিল প্রসিডিউর কোড- অর্ডার-২০ অফ 1908-এর বিধি 1 অনুসারে, মামলার শুনানি শেষ হওয়ার 7 দিনের মধ্যে রায় ঘোষণা করতে আদালতকে বলা হয়েছে। রায়ে পক্ষের জবানবন্দির সারসংক্ষেপ, বাদী-বিবাদীর সাক্ষীদের জেরা, জবানবন্দি বিশ্লেষণ, বিচারের বিষয়, সিদ্ধান্তের বিষয়ে যৌক্তিক আলোচনা, চূড়ান্ত আদেশ ইত্যাদি লিপিবদ্ধ করা হবে। একটানা উপায়ে।

Other posts you might like

Contract Under Bangladeshi Law

Contract Under Bangladeshi Law

The 6 Essential Elements of a Contract Under Bangladeshi Law As in many other jurisdictions, a Contract Under Bangladeshi Law is considered legally enforceable when it incorporates six essential elements: Offer, Acceptance, Awareness (also known as Consensus Ad Idem...

Call us!

× WhatsApp!
/* home and contact page javasccript *//* articles page javasccript */